অভিনন্দনকে দেশে ফেরার শুভেচ্ছা জানিয়ে নেটিজেনদের বিদ্রুপের মুখে সানিয়া মির্জা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

নয়াদিল্লি: আবারও সোশ্যাল মিডিয়ার বিদ্রুপের মুখে টেনিস তারকা সানিয়া মির্জা।  পুলওয়ামায় সিআরপিএফ কনভয়ে জঙ্গি হামলার পরই ইনস্টাগ্রামে নিজের ছবি পোস্ট করে কড়া সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন সানিয়া মির্জা। এমনকী, তাঁর দেশাত্মবোধ নিয়েও প্রশ্ন তুলেচিলেন নেটিজেনরা। যার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করে জবাবদিহি দিয়েছিলেন টেনিস সুন্দরী। বরফ তাতেও গলেনি। এর পরও একের পর এক সমালোচনার তির ধেয়ে এসেছিল তাঁর দিকে। এর পর থেকে বেশ কিছুদিন সানিয়া ভারত-পাক ইস্যু নিয়ে কার্যত চুপ ছিলেন।

পাক সেনার কব্জায় ৬০ ঘণ্টা আটক থাকার পর দেশে ফিরেছেন ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। তাঁকে স্বাগত জানিয়েছে গোটা দেশ। এই তালিকাতেই পড়েন ভারতের টেনিস কুইন সানিয়া মির্জা। তিনিও টুইট করে স্বাগত জানিয়েছেন অভিনন্দনকে। কিন্তু তাঁর টুইটের জবাবে তাঁকেই নিশানা বানালেন নেটিজেনরা।

তাঁর টুইটের জবাবে, পাকিস্তানের এক মহিলা বলেন, ‘ভাবিজি, আপনার জন্যই আমরা এটা করেছি। যাতে বাপের বাড়ি যাতায়াত হয় মাঝে মাঝে।” একজন আবার বলেন, ‘ভাবি রকড, শোয়েব শকড।’ কেউ বলেন, ‘বুঝতে পারছি, বাধ্য হয়েই আপনাকে এই টুইট করতে হয়েছে। আরেকজন খোঁচা দিয়ে বলেন, ‘দেখে মনে হচ্ছে, আপনি জীবনে কোনও দিন সত্যিকারের হিরো দেখেননি। আপনার জন্য দুঃখ লাগছে।’ ভারতের তরফেও কম ব্যঙ্গ করা হয়নি সানিয়াকে। একজন মন্তব্য করেন, ‘শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে বিশাসঘাতকতা করছেন ভাবি।’ কেউ বলেন, ‘আমার মনে হচ্ছে, আপনি পাকিস্তানকে ধন্যবাদ জানাতে ভুলে গিয়েছেন। পাকিস্তান আপনার হিরোকে মুক্তি দিল।’

২০১০ সালে পাকিস্তানের ক্রিকেট তারকা শোয়েব মালিকের সঙ্গে গাঁটছড়া বেধেছিলেন সানিয়া মির্জা। তার পর থেকে একাধিকবার তাঁকে সমালোচনার শিকার হতে হয়েছে। ভারত-পাকিস্তানের সম্পর্ক অবনতি হলে নেটিজেনদের একাংশ একাধিকবার তাঁকে আক্রমণ করেছে। তবে সানিয়াও বারবার দেশের প্রতি নিজের আনুগত্যবোধের প্রমাণ রেখেছেন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest