এবার থেকে তাজমহলে স্তন্যপান করানোর আলাদা ঘর

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

#আগ্রা: তাজমহল! পৃথিবীর সাতটি আশ্চর্যের অন্যতম আশ্চর্যের নাম এবং দর্শনের টানে দেশ বিদেশ থেকে লাখো লাখো দর্শনার্থী ভিড় জমান যমুনা পাড়ের এই স্মৃতিসৌধে। ইতিহাস বলে, তাজমহল যাঁর নামে উৎসর্গ করা, সেই শাহজাহান পত্নী মুমতাজ বেগম মারা গিয়েছিলেন সন্তানের জন্ম দিতে গিয়েই। বর্তমানে এই স্মৃতিসৌধটিতেই শিশুদের মাতৃদুগ্ধ পান করানোর জন্য বিশেষ ঘরের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

ভারতের প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের উচ্চপদস্থ আধিকারিক বসন্ত কুমার স্বর্ণকার জানান, জুলাই মাসের মধ্যেই এই কাজটি শেষ করার ভাবনা আছে। সারা বছর যেসব মায়েরা তাঁদের সন্তানদের নিয়ে এখানে আসেন, তাঁদের কিছুটা সাহায্য করতেই এই উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। বসন্ত কুমার জানান, সপ্তদশ খ্রীষ্টাব্দের এই সৌধ ভালোবাসার প্রতীক। তাঁর কথায়, গত সপ্তাহে একজন মাকে তিনি দেখেন, তাজমহলের একটি সিঁড়ির নীচে কার্যত লুকিয়ে বসে বাচ্চাকে স্তন্যপান করাচ্ছেন, এবং তাঁর স্বামী তাঁদের আড়াল করে রেখেছেন। সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে বসন্ত কুমার বলেন, “বাচ্চাকে খিদে পেলে খাওয়ানো মাতৃত্বের অধিকার। এর মধ্যে কোনও লজ্জা নেই। কিন্তু এই ঘটনাটির পর আমাদের মনে হলো, কিছু একটা পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।”

প্রসঙ্গত, গত বছর কলকাতার সাউথ সিটি মলের সামনে কিছু মায়েরা বিক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। কারণ, সেখানকার কর্মীরা একজন মহিলাকে মলের বাইরে বেরিয়ে যেতে বলেন শুধুমাত্র তিনি সেখানে তাঁর শিশুকে স্তন্যপান করিয়েছিলেন বলে।  ২০১৭ সালে লন্ডনের ভিক্টোরিয়া অ্যালবার্ট মিউজিয়ামের কর্ণধার একজন মহিলার কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন কারণ তাঁকে বলা হয়েছিল তাঁর সন্তানকে তিনি যেন ঢেকে নিয়ে স্তন্যপান করান। দু’বছর আগে স্পেনের একটি সৌধেও এই ধরনের ঘটনা ঘটেছিল।

উল্লেখ্য, প্রতি বছর প্রায় ৮০ লক্ষ মানুষ আসেন এই তাজমহলে। ভারতে অবস্থিত ৩,৬০০ সৌধের মধ্যে এই প্রথম কোনও দর্শনীয় সৌধে এই ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে। বসন্ত কুমার জানান, তিনি আগ্রায় আরও দুটি স্মৃতিসৌধে এই ধরনের ঘরের ব্যবস্থা করার পরিকল্পনা নিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, “আমি আশা করছি শুধু ভারতে নয়, বিশ্বব্যাপী এই পরিকল্পনা গ্রহন করা হবে, যেখানে মায়েরা সহজেই তাঁদের বাচ্চাকে স্তন্যপান করাতে পারবেন।”

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest