কমছে দূরত্ব, রাহুল গান্ধীকে নিয়ে অবস্থান বদলের ইঙ্গিত তৃণমূলের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

#কলকাতা: এখন মূল লক্ষ্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে গদি থেকে সরানো। তার জন্য কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মেনে নিতে কোনো অসুবিধা নেই তাদের। এমনই খবর পাওয়া গেল তৃণমূল সূত্রে। এর ফলে রাহুল গান্ধীর ব্যাপারে নিজেদের অবস্থান থেকে সরে আসারই ইঙ্গিত দিল তৃণমূল।

সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবর অনুযায়ী, তৃণমূলের এক সূত্র জানিয়েছে, মোদিকে রুখতে যে কোনও দলকে সমর্থন করতে পারে তৃণমূল। নাম জানাতে অনিচ্ছুক তৃণমূলের এক হেভিওয়েট নেতা ওই সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছে, “যদি স্ট্যালিন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাহুলের নাম প্রস্তাব করে থাকে, তাতেও আমাদের কোনও সমস্যা নেই। আমরা শুধু চাই মোদিকে সরাতে।” রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তৃণমূলের ইঙ্গিত স্পষ্ট। মোদিকে প্রধানমন্ত্রী হওয়া থেকে আটকাতে যদি রাহুলকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাহুলকে সমর্থন করতে হয়, তাতেও আপত্তি নেই এরাজ্যের শাসকদলের।

উল্লেখ্য, কর্ণাটকে কংগ্রেস-জেডিএস যৌথভাবে সরকার গঠনের মঞ্চ থেকেই মহাজোটের সলতে পাকানো শুরু হয়। এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকা ব্রিগেড সমাবেশেও এক ছাতার তলায় ইউনাইটেড ইন্ডিয়ার নেতারা এসেছিলেন। কিন্তু, তখনও বিজেপি বিরোধী জোটের মুখ হিসেবে কাউকে চিহ্নিত করা হয়নি। মমতার ব্রিগেড ফিরে গিয়ে স্ট্যালিন, তেজস্বী যাদবের মতো নেতারা রাহুল গান্ধীকে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছিলেন। জেজিএস নেতা কুমারস্বামীও কংগ্রেস সভাপতির নাম বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী পদে। তবে রাহুল গান্ধীকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মানতে কিছুটা আপত্তি ছিল তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। রাহুলকে ‘বাচ্চা ছেলে’ বলেও কটাক্ষ করেছিলেন তিনি। মমতার সঙ্গে সনিয়া গান্ধীর সম্পর্ক যতটা ভালো, রাহুলের সঙ্গে ততটা ভালো নয় বলেই ধারণা বিশেষজ্ঞ মহলের। তাই এত দিন পর্যন্ত রাহুল নিয়ে বিশেষ কিছু উচ্চবাচ্য করেননি তিনি। কিন্তু নির্বাচনের ফলাফলের দিন যত এগিয়ে আসছে, তত উৎকণ্ঠা বাড়ছে বিরোধী শিবিরে। পালটা জবাবে এরাজ্যে মমতাকে আক্রমণও শানিয়ে গিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি। কিন্তু, তৃণমূল সূত্রে যা খবর তাতে লোকসভায় কংগ্রেস যদি ভাল ফল করে, তাহলে রাহুলকে সমর্থনেও আপত্তি নেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

 

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest