কোল্ড এলার্জি হলে যা করবেন

ওয়েব ডেস্ক: শীতের ভোরে লেপের নিচে আরেকটু সময় কাটাতে কার না মন চায়। কিন্তু সময়কে তো আর বেঁধে রাখা যায় না। অফিস কাছারি স্কুল বা সংসারের কাজ যে কোনো চাপে শেষমেষ বিছানা ছেড়ে উঠতে হয়। আর তারপরই শুরু হয় প্রচন্ড হাঁচি, নাক দিয়ে জল পড়া,মাথার যন্ত্রনা। শীতের সকালে এই সমস্যায় আমাদের মধ্যে অনেকেই ভোগেন। অনেকেরই হয়তো সারাটা সকাল কেটে যায় হেঁচে কেশে। অফিসে সঙ্গী হয় সর্দি ভেজা রুমাল আর লাল চোখ। শীতের এই সমস্যাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয় ভেসোমোটর রাইনাইটিস।
শীতের হাঁচি ও সর্দি সমস্যাটি থেকে রেহাই পাওয়া খুবই সহজ। কয়েকটা টিপস মেনে চললেই মিলবে উপশম যেমন- সকালে বিছানা ছেড়ে ওঠার পর ফ্লোরে কিংবা মাটিতে কোন অবস্থাতেই খালি পায়ে হাঁটবেন না। জুতো পরুন বা মোজা পরে থাকুন। বাচ্চাদের কোল্ড এলার্জি থাকলে ঘুম থেকে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে মাথায় টুপি ও পায়ে মোজা পরিয়ে দিন।

সর্দির জন্য এ সময়ে আন্টিহিস্টামিন জাতীয় ওষুধ যেমন – হিস্টাসিন, হিস্টাল, এভিল,এক্সপিলিন ট্যাবলেট আপনার কাছে রাখুন। এছাড়া বন্ধ নাক খোলার জন্য এন্টাজল, রাইনোজল বা নোভিন জাতীয় কিছু রাখুন। দিনে তিনবার নাকের ছিদ্রপথে ব্যবহার করতে পারেন। তবে খেয়াল রাখবেন যে কোন ওষুধ ব্যবহারের আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া অবশ্য কর্তব্য।

কোল্ড এলার্জি সমস্যা যদি বেশি কাবু করে ফেলে তাহলে প্রতিদিন রাতেই একটা করে এভিল খেতে পারেন।

যারা সকালবেলায় জগিং করেন তারা নাক মুখ ভালো করে ঢেকে নিয়ে তবেই বাড়ি থেকে বের হন। প্রয়োজনে নাক কান গলা বিশেষজ্ঞের সঙ্গে কথা বলুন সব থেকে বড় কথা হল প্রকৃতির ঋতুকালীন পরিবর্তনের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নেওয়ার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকুন।