চৌকিদারের পালটা,নামের আগে ‘বে-রোজগার’ জুড়লেন হার্দিক প্যাটেল

আহমেদাবাদ: মোদির রাজ্য ‘মডেল স্টেট’ নয়, বরং এই রাজ্যেই বেকারত্বের হার সবচেয়ে বেশি। এই দাবি করে নিজের নামের আগে ‘বে-রোজগার’ শব্দটি জুড়লেন সদ্য কংগ্রেসে যোগ দেওয়া পাটিদের নেতা হার্দিক প্যাটেল।

দীর্ঘদিন ধরেই মোদী সরকারের বিরুদ্ধে বেকারত্বের অভিযোগ তুলে আসছেন হার্দিক। বারবার এই ইস্যুতে মোদীকে আক্রমণ করেছেন তিনি। তাই একদিকে যখন সব বিরোধীরা মোদীর এই ‘চৌকিদার’ শব্দটিকে নিয়ে আক্রমণ করতে ব্যস্ত, তখন হার্দিক পটেল আনতে চাইলেন ট্যুইটারের নতুন ট্রেন্ড, যাতে চোখে আঙুল দিয়ে সবাইকে দেখিয়ে দেওয়া যায় যে বেকারত্বই ছেয়ে আছে দেশে।নিজের ফেসবুক লাইভে হার্দিক প্যাটেল বলেন,’মোদী-শাহ ভালো ভাবেই জানেন এ রাজ্যে এখন ৫৫ লক্ষ মানুষ বেকার।কিন্তু সে কথা তাঁরা স্বীকার করেন না। প্রতিদিন রাজ্যে কৃষক আত্মহত্যা করছে।প্রতিদিন ৪০০ কিশোরী-মহিলা নিখোঁজ হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ওঁরা গুজরাট মডেলকে সামনে রেখে নিজেদের ভোট ব্যাঙ্ক করছে। মোদীজি চৌকিদার হচ্ছেন!”

গত পাঁচ বছরে মোদি জমানায় সারা দেশে কর্মসংস্থান বাড়েনি এমনটাই জানিয়েছে একাধিক দেশি-বিদেশি সমীক্ষা।অথচ শনিবার থেকে ‘চৌকিদার’ ট্রেন্ড শুরু করেছেন নরেন্দ্র মোদী।এই বিষয়টিকে কটাক্ষ করেই হার্দিকের এই ‘বে-রোজগার’ পদক্ষেপ তাতে কোনও সন্দেহ নেই।

একদিন আগেই মোদি এক নির্বাচনী সভায় বলেন, “আমিও এক চৌকিদার।” মোদির ওই মন্তব্য টেনে এনে রাহুল বলেন, “চৌকিদারও চুরির ঘটনায় জড়িয়ে গিয়েছে। নিজে জড়িয়ে যাওয়ার পর চৌকিদার এখন বলছেন, গোটা হিন্দুস্তানই চৌকিদার। তবে ধরা পড়ার আগে তিনি কখনওই বলেননি যে গোটা হিন্দুস্তানই চৌকিদার।”ম্যায় ভি চৌকিদার’‌ অভিযানকে কটাক্ষ করেছেন ইউপিএ সরকারের অর্থমন্ত্রী তথা শীর্ষ কংগ্রেস নেতা পি চিদম্বরম। টুইটারে তিনি লেখেন, ‘‌এখন আমিও চৌকিদার হয়ে গিয়েছি। কারণ আমি যে চৌকিদারকে নিযুক্ত করেছিলাম তিনি নিখোঁজ। খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি তিনি আচ্ছে দিনের সন্ধানে গিয়েছেন।’‌কংগ্রেস নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া বলেন, ‘‌চৌকিদারের অবস্থা এরকম হলে দেশকে কে রক্ষা করবে?’‌ সমাজবাদী পার্টির প্রধান তথা উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব বলেন, ‘‌চৌকিদারি ঘিরে বিতর্ক এতটাই বেড়ে গিয়েছে যে তরুণরা আর কেউ এই পেশায় আসতে চাইছে না।’‌