থমথমে ভাটপাড়ায় টহল পুলিশ-র‌্যাফের, আগামীকাল এলাকায় যাচ্ছেন দুই প্রাক্তন পুলিশকর্তা-সহ বিজেপির তিন সাংসদ

#কলকাতা: ১৪৪ ধারা জারির পরেও বোমাবাজির ঘটনা ঘটল উত্তর ২৪ পরগনার ভাটপাড়ায়। গত বৃহস্পতিবার গুলি-বোমায় উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল এলাকা। সংঘর্ষে নিহত হন দু’জন, আহতের সংখ্যাও কমপক্ষে সাত। এর পরেই মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ভাটপাড়া এবং জগদ্দলে জারি হয় ১৪৪ ধারা। কিন্তু পরিস্থিতি যে এখনও যথেষ্ট শান্তিপূর্ণ নয়, তা বোঝা গেল শুক্রবার ফের বোমাবাজির ঘটনায়। বিজেপি সূত্রে খবর, আগামী শনিবার ভাটপাড়ায় যাচ্ছেন দলের তিন সদস্যের প্রতিনিধি দল। যাঁদের মধ্যে থাকছেন দুই প্রাক্তন পুলিশকর্তা।

অন্যদিকে, ভাটপাড়া পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে শনিবার সেখানে যাচ্ছে বিজেপির ৩ সদস্যের প্রতিনিধিদল। বিজেপির তরফে জানানো হয়েছে, দলের নেতৃত্ব দেবেন বর্ধমান – দুর্গাপুর কেন্দ্রের সাংসদ সুরেন্দ্রসিংহ আহলুওয়ালিয়া। সঙ্গে থাকবেন আরও ২ সাংসদ তথা প্রাক্তন পুলিস কর্তা। সুরেন্দ্রসিংহ ছাড়াও দলে থাকবেন মুম্বইয়ের প্রাক্তন পুলিস কমিশনার তথা বাগপতের বিজেপি সাংসদ সত্যপাল সিং। থাকবেন ঝাড়খণ্ড পুলিসের প্রাক্তন ডিজি তথা পালামৌ-এর বিজেপি সাংসদ বিডি রাম।

এক পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, শুক্রবার পর্যন্ত ১৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে সংঘর্ষে জড়িত থাকার অভিযোগে। এক দিকে যখন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভাটপাড়া এবং সংলগ্ন এলাকায় শান্তি ফেরাতে ৭২ ঘণ্টার সময়সীমা বেঁধে দিয়েছেন, তখন অশান্তি নিয়ে উদ্বিগ্ন রাজ্যপালও। তিনি মন্তব্য করেন, শুধুমাত্র ভাটপাড়া নয়, গোটা রাজ্যেই শান্তি বজায় রাখা প্রয়োজন।

এ দিন ভাটপাড়াকাণ্ডের প্রতিবাদে ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেট ঘেরাও করে বিজেপি। সেখানে যান এলাকার নবনির্বাচিত বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। গত বৃহস্পতিবার ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনারের অপসারণ নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন তিনি। অর্জুন বলেন, এ ভাবে পুলিশ কমিশনারকে সরিয়ে সমস্যার সমাধান হবে না। শান্তি এ ভাবে ফেরানো যায় না। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে বিজেপির প্রতিবাদ চলবে।