বাংলার পর্বতারোহণে উজ্জ্বল দিন, কাঞ্চনজঙ্ঘা শৃঙ্গে জয়ের পতাকা ওড়ালেন চার বাঙালি!

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

নিউজ কর্নার ওয়েব ডেস্ক: বাংলার পর্বতারোহণের মুকুটে নতুন পালক জুড়ল বাঙালি অভিযাত্রী দল! নেপালের পর্বতারোহণ সংস্থা ‘পিক প্রোমোশন’ থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী, বুধবার ভোরে বিশ্বের তৃতীয় উচ্চতম শৃঙ্গ, কাঞ্চনজঙ্ঘার ( ৮৫৮৬ মিটার) চুড়ো স্পর্শ করেছেন চার বাঙালি তরুণ! জানা গিয়েছে, সোনারপুর আরোহী ক্লাবের বিপ্লব বৈদ্য, কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে রুদ্রপ্রসাদ হালদার, হৃদয়পুরের মাউন্টেন কোয়েস্ট ক্লাবের রমেশ রায় এবং ইছাপুরের শেখ সাহাবুদ্দিন সফল ভাবে দেশের সর্বোচ্চ এবং বিশ্বের তৃতীয় সর্বোচ্চ শৃঙ্গে পা রাখেন।

মঙ্গলবার বিকেল থেকেই শুরু হয়েছিল উৎকণ্ঠার প্রহর। ওই দিনই প্রায় সাত হাজার মিটার উচ্চতার তিন নম্বর ক‍্যাম্প থেকে সাড়ে সাত হাজার মিটার উচ্চতার ক্যাম্প ফোর তথা সামিট ক‍্যাম্পের পথে রওনা দেন পাঁচ জন। এঁদের মধ্যে ছিলেন পর্বতারোহী কুন্তল কাঁড়ারও। বুধবার সকালে খবর আসে, পাঁচ জনের মধ্যে চার জনই সামিট করেছেন। তবে কুন্তল কাঁড়ার সামিট করেছেন কি না, সেই খবর পাওয়া যায়নি।

কাঞ্চনজঙ্ঘায় আরোহণ অন্যান্য বেশির ভাগ ৮০০০ মিটার শৃঙ্গের চেয়ে তুলনামূলক ভাবে বেশ কঠিন বলেই মনে করেন আরোহীরা। স্বাভাবিক ভাবেই সফল অভিযানের সংখ্যাও বেশ কম। ২০১৪ সালের ২০ মে কাঞ্চনজঙ্ঘা অভিযানে থেকে ফেরার পথেই নিখোঁজ হয়ে যান ছন্দা গায়েন। তার পরে বাংলা থেকে এই প্রথম সফল অভিযান হল এই দুর্গম শৃঙ্গে। তবে মঙ্গলবার বিকেলে শুরু করা ‘ফাইনাল অ্যাটেম্পট’-এর আগে পর্যন্ত পেরিয়ে আসা এতটা পথ মোটেই সহজ ছিল না তাঁদের কাছে। ১০ মে ক‍্যাম্প-২ তে পৌঁছোনোর পরে ঠিক ছিল, ১১ তারিখ বিশ্রাম নিয়ে ১২ তারিখ রবিবার তাঁরা ক‍্যাম্প-৩ পৌঁছে যাবেন। কিন্তু খারাপ আবহাওয়ার কারণে তাঁরা সেদিন ক‍্যাম্প-২ তেই থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এর পরে ১৩ মে অনেকটা লম্বা পথ পেরিয়ে তাঁরা ক‍্যাম্প-৩ পৌঁছেছিলেন। তার পরে ১৪ তারিখ ভোরে শুরু করেন ক্যাম্প ফোর অর্থাৎ সামিট ক্যাম্পের উদ্দেশে যাত্রা।

শেষমেষ বুধবার সকালে পৃথিবীর তৃতীয় উচ্চতম শৃঙ্গে পা রাখলেন বাংলার চার পর্বতারোহী। ৮৫৮৬ মিটার উচ্চতায় উড়ল দেশের পতাকা।এই অভিযাত্রী দলে ছিলেন পুর্বা, মিংমা, দাওয়া তেম্বা, দাওয়া সিরিং এবং দাওয়া নামের পাঁচ জন দক্ষ শেরপা। পর্বতারোহণ সংস্থা সূত্রের খবর, নিরাপদে সামিট করার পরে কাঞ্চনজঙ্ঘা থেকে অবতরণ করছেন পর্বতারোহীরা। সবাই সুস্থ শরীরে রয়েছেন বলেই খবর।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest