ভোট প্রচারে নির্ধারিত সীমার থেকে বেশি টাকা খরচ করেছেন সানি দেওল, নির্বাচন কমিশনের নোটিশ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

#নয়াদিল্লি: বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না বলিউড অভিনেতা তথা সাংসদ সানি দেওলকে। এ বারের লোকসভায় পঞ্জাবের গুরদাসপুর কেন্দ্র থেকে পদ্ম-প্রতীকে জিতে সংসদে গিয়েছেন তিনি। কিন্তু একের পর এক বিতর্ক তাঁর পিছু ছাড়ছে না।

কয়েক দিন আগেই নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রে প্রতিনিধি নিয়োগের বার্তা দিয়ে সমালোচনার শিকার হন। কোনো রকমে তাপ্পি দিয়ে সে যাত্রায় রক্ষে পান। কিন্তু এ বার পড়লেন খোদ নির্বাচন কমিশনের নজরে। শনিবার কমিশন জানায়, নির্বাচনে খরচ সংক্রান্ত গুরদাসপুর নির্বাচনী আধিকারিকের পাঠানো রিপোর্ট তাদের হাতে পৌঁছেছে।

এ বারের লোকসভা ভোটে কমিশন যে কোনো দলের প্রার্থীর জন্য আর্থিক ব্যয়ের সীমা বেঁধে দিয়েছিল ৭০ লক্ষে। কিন্তু প্রশাসন মারফত কমিশনের হাতে পৌঁছানো রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, ভোট প্রচারে নির্ধারিত সীমার থেকে বেশি টাকা খরচ করেছেন বিজেপির তারকা প্রার্থী। এর পরই গুরদাসপুর জেলা নির্বাচনী আধিকারিক তথা ডেপুটি কমিশনার তাঁকে নোটিশ পাঠান। ৫৯ বছর বয়সি অভিনেতা-সাংসদের কাছে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেন তিনি।

কমিশন সূত্রের খবর, প্রার্থী পিছু সর্বোচ্চ ৭০ লক্ষ টাকা খরচের সীমা বেঁধে দেওয়া হলেও সানি ব্যয় করেছেন ৭৮,৫১,৫৯২ টাকা। অর্থাৎ, যা নির্ধারিত সীমার থেকে সাড়ে আট লক্ষ টাকার বেশি।

অন্য দিকে ওই রিপোর্ট থেকেই জানা গিয়েছে, সানির প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেস প্রার্থী সুনীল জাখর নিজের প্রচারে ব্যয় করেছেন ৬১,৩৬,০৫৮ টাকা। যার পরিমাণ কমিশন নির্ধারিত সীমার মধ্যেই।

রিপোর্ট হাতে পেয়ে কমিশন জানিয়েছে, ব্যয়ের পরিমাণ নিয়ে জেলা নির্বাচনী আধিকারিকের পাঠানো রিপোর্টের বিরোধিতা করতেই পারেন সানি। তবে তার জন্য তাঁকে যথাযোগ্য প্রমাণ হাজির করতে হবে।

প্রসঙ্গত, ওই কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থীকে ৮২,৪৫৯ ভোটে পরাজিত করেন সানি। তাঁর প্রার্থী মনোনয়ন-পর্বেই ওই কেন্দ্রের প্রয়াত প্রাক্তন সাংসদ বিনোদ খান্নার স্ত্রী বিতর্ক উসকে দিয়েছিলেন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest