“মোদী মোদী” স্লোগান তোলা বিজেপি সমর্থকদের সঙ্গে হাত মেলালেন প্রিয়ঙ্কা, বললেন ‘অল দ্য বেস্ট’

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

#ভোপাল: লোকসভা নির্বাচনের আবহে চতুর্দিকে যখন উত্তর-প্রত্যুত্তর শালীনতার সীমা ছাড়াচ্ছে, ঠিক সেই সময়ে বেনজির রণনীতিতে বিজেপি সমর্থকদের স্বাগত জানালেন ইন্দিরা পৌত্রী। মধ্য প্রদেশের ইন্দোরে একটি রোড শো করতে এসে বিজেপির সমর্থকদের “মোদী,মোদী” স্লোগানের জবাবে সকলকে বিস্মিত করে মোদী সমর্থকদের অভিবাদন জানালেন প্রিয়ঙ্কা গান্ধী। চেষ্টা ছিল অস্বস্তিতে ফেলার। কিন্তু প্রিয়ঙ্কা  হাসি মুখে করমর্দন করে গোটা পরিস্থিতিটাকেই যেন ঘুরিয়ে দিলেন। প্রকাশ্য রাজপথে তিনি যে সৌজন্যের পরিচয় দিলেন, মুহূর্তেই তা ভাইরাল হয়ে গেল সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সোমবার থেকেই মধ্যপ্রদেশের নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন প্রিয়ঙ্কা। প্রথমে মহাকালেশ্বর মন্দিরে পুজো দেন। তার পর উজ্জয়িনী কেন্দ্রে রোড শো করেন। রাস্তার দু’পাশে চোখে পড়ার মতো ভিড় ছিল। লম্বা কনভয়। কোন গাড়িতে তিনি আছেন সেটা রাস্তার লোকের পক্ষে বোঝা সম্ভব নয়। তবু আন্দাজেই দু’তিনটে গাড়ি এগিয়ে যাওয়ার পরই রাস্তার ধারে দাঁড়ানো কয়েকজন মহিলা বিজেপি কর্মী ‘মোদী-মোদী’ স্লোগান দিতে শুরু করেন। একটা কালো এসইউভি- তে ছিলেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী। নেমে পড়েন গাড়ি থেকে। এগিয়ে আসেন ওই মহিলাদের দিকে। হাসি মুখে হাত মিলিয়ে বলেন, “আপনারা আপনাদের জায়গায়, আমি আমার জায়গায়! অল দ্য বেস্ট।” গোটা পর্বতেই তাঁর মুখে ছিল অনাবিল এক হাসি। বিজেপি কর্মীরাও বোধহয় এমনটা ভাবেননি। প্রিয়ঙ্কা গাড়ি থেকে নামতেই তাঁরাও কিছুটা থতমত খেয়ে যান। তারপর বলেন, “ভেরি গুড, ভেরি গুড।”

ঘটনাটি সোমবার মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরের। সেখানে রোড শো ছিল প্রিয়ঙ্কার। তাঁর সঙ্গেই ছিলেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথ এবং ছত্তীসগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেল। ১৯৮৯ সাল থেকে ইন্দোর আসন বিজেপি-র দখলে। সেখানেই রোড শো ছিল সনিয়া-কন্যার। প্রধান প্রতিপক্ষ নরেন্দ্র মোদীর স্লোগান শুনেও প্রিয়ঙ্কা যে ভাবে এগিয়ে এসে সকলের সঙ্গে আলাপ করেছেন, তা ভারতের রাজনীতিতে সত্যিই বিরল। সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর একটি ভিডিয়ো ঘিরে তোলপাড় হয়েছে রাজনীতি। ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান শুনে গাড়ি থেকে নেমে রুখে দাঁড়াতে দেখা যায় মুখ্যমন্ত্রীকে। তা নিয়ে প্রচুর সমালোচনাও হয়েছে।

রাজনীতিকদের একাংশ মনে করিয়ে দিচ্ছেন, রাজনীতিতে সৌজন্য যেন বড়ই বিরল হয়ে গিয়েছে আজকাল। প্রিয়ঙ্কা যেন সেই বিরল সৌজন্যকেই ফিরিয়ে আনলেন ভারতীয় রাজনীতিতে।

 

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest