“রামমোহন রায় ব্রিটিশদের চামচা ছিলেন”, সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট গেরুয়া শিবির ঘনিষ্ট বলিউড অভিনেত্রীর

#মুম্বই: সতীদাহ প্রথাকে সমর্থন করে এবং রাজা রামমোহন রায়ের বিরুদ্ধে অশালীন মন্তব্য করে তীব্র রোষের মুখে পড়লেন বলিউডের অভিনেত্রী পায়েল রোহতগি। এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে অভিনেত্রীকে গ্রেফতার করা উচিত বলে মুম্বই পুলিশকে জানিয়েছেন এক সমাজকর্মী।

গত শনিবার একটি টুইট করে আচমকা সতীদাহ প্রথাকে সমর্থন করে বসেন রোহতগি। তিনি লেখেন, “না, সতীদাহ প্রথা বাধ্যতামূলক ছিল না। মুঘলদের হাতে মহিলাদের পতিতা হয়ে যাওয়া আটকানোর জন্যই এই প্রথা ব্যবহার করা হত।” এর পর রাজা রামমোহন রায় সম্পর্কে তাঁর মন্তব্য, “তিনি ব্রিটিশদের চামচা ছিলেন।”

https://twitter.com/Payal_Rohatgi/status/1132656909780160515

বিজেপি তথা দক্ষিণপন্থী আদর্শে রোহতগি বিশ্বাসী, এটা আগেও অনেক বার বুঝিয়েছেন তিনি। কিন্তু এ বার যে অনেকটাই বেশি বাড়াবাড়ি করে ফেলেছেন, সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে মুম্বই পুলিশের কী করা উচিত, সে ব্যাপারে পুলিশকে তাঁদের কর্তব্যের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন সমাজকর্মী সাকেত গোখলে।

https://twitter.com/Payal_Rohatgi/status/1132105757485232128

সতীদাহ প্রথাকে সমর্থন করা ব্যক্তির কী শাস্তি হতে পারে, ফেসবুকে একটি পোস্ট করে সেটা জানিয়ছেন সাকেত। ১৯৮৭-এর সতী (রদ) আইনের ৫ নম্বর ধারা উল্লেখ করে তিনি বলেন, “সতীদাহ প্রথাকে সমর্থন করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এ ক্ষেত্রে অপরাধীর সর্বনিম্ন এক বছর ও সর্বোচ্চ সাত বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে।”  পাশাপাশি সাকেতের টিপ্পনী, “অনেকেই হয়তো মনে করবেন বিজেপি ঘেঁষা পায়েল, নজরে থাকার জন্যই এই মন্তব্য করেছেন। কিন্তু এখন যখন সাধ্বী প্রজ্ঞার মতো সন্ত্রাসে অভিযুক্ত একজন সাংসদে রয়েছেন, তখন পায়েলও কিছু দিনের মধ্যেই রাজ্যসভায় টিকিট পেয়ে যেতে পারেন।”