শহরে নামল স্বস্তির বৃষ্টি, সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া

#কলকাতা: অবশেষে শহরে স্বস্তির বৃষ্টি। কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলাতে মুষলধারে বৃষ্টি নামল শহরে।

শনিবার সন্ধেয় পূর্বাভাস অনুযায়ী প্রবল বৃষ্টি নামে কলকাতা ও তার পাশ্ববর্তী অঞ্চলে। এদিন সকাল থেকেও গরম ছিল অপেক্ষাকৃত কম। হাওয়ার বেগও ছিল বেশি। রোদের তাপ কম থাকায় আরামদায়ক আবহাওয়া ছিল শহরে। সন্ধে নামতেই বৃষ্টি শুরু হয়। সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া। ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার বেগে হাওয়া বইতে শুরু করে। বেশ কিছুক্ষণ ধরে চলে সেই বৃষ্টি। শহরের বেশ কিছু জায়গায় জল জমে যায়।

শনিবার সকালেই আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছিল গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় এ দিন সন্ধ্যায় বৃষ্টি হতে পারে। সঙ্গে ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার বেগে বইবে ঝোড়ো হাওয়া। কলকাতা ছাড়াও ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস ছিল হাওড়া, হুগলি, দুই চব্বিশ পরগনাতেও। পাশাপাশি মুর্শিদাবাদ এবং বীরভূমেও ঝড়বৃষ্টি হবে বলে জানিয়েছিল আবহাওয়া দফতর। তবে কেবল দক্ষিণবঙ্গে নয় উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলাতেও আগামী ২৪ ঘণ্টা ঝড়বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে হাওয়া অফিস।

তবে ঝড়-বৃষ্টি হলেও আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি বজায় থাকবে বলেই জানিয়েছে হাওয়া অফিস। শহরবাসী সাময়িক স্বস্তি পাবেন ঠিকই। তবে এখনি কমছে না হাঁসফাঁস করা গরম। আরও কয়েকদিন কলকাতা এবং দক্ষিণবঙ্গের অন্যান্য জেলার বাসিন্দাদের ভ্যাপসা গরমে হাঁসফাঁস করতে হবে বলে অনুমান আবহাওয়া দফতরের। তবে এই বিক্ষিপ্ত ঝড়-বৃষ্টির ফলে সামান্য হলেও পারদের হেরফের হবে বলে মনে করছেন আবহাওয়াবিদরা।

শনিবার সকালে তাপমাত্রা ছিল ২৬.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিক। শুক্রবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। এর অবশ্য কোনও হেরফের হয়নি। আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বোচ্চ ছিল ৮৪ ও সর্বনিম্ন ৫৪ শতাংশ। এক সকালবেলা আবার তা বেড়ে হয়েছে সর্বোচ্চ ছিল ৯৩ ও সর্বনিম্ন ৫২ শতাংশ।