ICC Women’s T20 World Cup Final: অধরা বিশ্বকাপ, ৮৫ রানে হার হরমনপ্রীতদের

মেলবোর্ন: আইসিসি ওমেনস টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে এই ভারতের কাছেই হেরেছিল গতবারের চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। অজিদের আত্মাভিমানে সেদিন আঘাত লেগেছিল। বিশ্বকাপের ক্লাইম্যাক্সে এসে সেই ভারতকে দুরমুশ করে পঞ্চমবারের জন্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মুকুট মাথায় উঠল অস্ট্রেলিয়ার। অস্ট্রেলিয়ার ১৮৪ রানের জবাবে ভারত ৯৯ রানে গুটিয়ে গেল। ৮৫ রানে ম্যাচ জয় অস্ট্রেলিয়ার।

টস জিতে এদিন প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অজি অধিনায়ক ম্যাগ ল্যানিং। বিশ্বকাপের ফাইনালে একের পর এক ক্যাচ মিস। জঘন্য ফিল্ডিং। হতশ্রী বোলিং। ভারতীয় বোলারদের নিয়ে রীতিমতো ছেলেখেলা করেন অজি ক্রিকেটাররা। এলিসা হিলি-বেথ মুনির দুরন্ত ওপেনিং পার্টনারশিপই কার্যত জয়ের ভিত গড়ে দেয় অস্ট্রেলিয়ার। ভারতীয় বোলারদের পিটিয়ে ৩৯ বলে ৭৫ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন এলিসা হিলি। বেথ মুনি ৭৮ রানে অপরাজিত থাকেন। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৮৪ রান তোলে অজিরা। বিশ্বকাপ জিততে ভারতের মেয়েদের সামনে টার্গেট ছিল ১৮৫ রানের।

আরও পড়ুন: নারী দিবসের শ্রদ্ধার্ঘ্য: যেসব বাংলা সিনেমায় নারীই মূল চরিত্র

রান তাড়ার শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছিল টিম ইন্ডিয়া। দ্বিতীয় বলেই ফিরেছিলেন শেফালি ভার্মা। শুরুতে ঝড় তোলার জন্য তাঁর উপরেই নির্ভর করছিল দল। কিন্তু ১৬ বছর বয়সি ফিরলেন মাত্র ২ রানে। মেগান স্কুটের বলে তাঁর খোঁচা জমা হয়েছিল উইকেটকিপার অ্যালিসা হিলির হাতে। প্রথম ওভারে উঠেছিল মাত্র ৩। দ্বিতীয় ওভারে জেস জোনাসেন দিলেন জোড়া ধাক্কা। তৃতীয় বলে সুইপ মারতে গিয়ে বল লাগল তানিয়া ভাটিয়ার হেলমেটে। দৌড়ে এলেন ফিজিয়ো। তানিয়া ঘাড়ে হাত বোলাতে বোলাতে বেরিয়ে গেলেন মাঠ ছেড়ে। সেই ওভারেই ষষ্ঠ বলে জেমাইমা রডরিগেজ ক্যাচ দিলেন মিড অনে। দ্বিতীয় ওভারের শেষে দুই উইকেট হারিয়ে ভারতের রান দাঁড়িয়েছিল মাত্র ৮।

৩.১ ওভারে পড়ল তৃতীয় উইকেট। আউট হলেন স্মৃতি মন্ধানা (১১)। সোফি মলিনিউক্সের বলে ক্যারিকে ক্যাচ দিলেন তিনি। এর পর চতুর্থ উইকেট পড়ল ৫.৪ ওভারে। মারতে গিয়ে লোপ্পা ক্যাচ তুললেন অধিনায়ক হরমনপ্রীত কৌর (৪)। জোনাসেনের বলে তাঁর ক্যাচ ধরলেন গার্ডনার। প্রথমেই দুই উইকেট হারানোর পর অভিজ্ঞ মন্ধানা ও হরমনপ্রীতের দিকেই তাকিয়েছিল দল। কিন্তু দুই সিনিয়রই আসল দিনে ব্যর্থ হলেন। পাওয়ারপ্লে-র ছয় ওভারের মধ্যেই চার উইকেট হারিয়ে ফেলল দল। উঠল মাত্র ৩২ রান।

ভারতের পঞ্চম উইকেট পড়ল ৫৮ রানে। ১১.৩ ওভারে কিমিন্সের বলে ফিরলেন ভেদা কৃষ্ণমূর্তি (১৯)। তানিয়ার জায়গায় এই সময় ‘কনকাসন সাব’ হিসেবে ব্যাট করতে এলেন রিচা ঘোষ। প্রথম দলে ছিলেন না তিনি।  কিন্তু হঠাৎ পাওয়া এই সুযোগ কাজে লাগাতে পারলেন না রিচা। ১৮ বলে ১৮ করে ফিরলেন তিনি। দীপ্তি শর্মা (৩৩) ও শিখা পাণ্ডে (২) অবশ্য তার আগেই ফিরে গিয়েছিলেন। ৮৮ রানে ছয় উইকেট পড়ার পর ইনিংসে দাঁড়ি পড়ল ৯৯ রানে। অস্ট্রেলিয়ার সফলতম বোলার মেগান স্কুট। তিনি ১৮ রানে নিলেন চার উইকেট। ২০ রানে তিন উইকেট নিলেন জোনাসেন।

আরও পড়ুন: 83-The Film: ‘বিশ্বকাপ হাতে কপিল দেব’, নস্ট্যালজিয়া উসকে দিলেন রণবীর

তিন বছর আগে লর্ডসের ৫০ ওভারের বিশ্বকাপের ফাইনালে স্বপ্নভঙ্গ হয়েছিল ভারতীয় মেয়েদের।ইংল্যান্ডের কাছে হেরে শূন্য হাতে ফিরতে হয়েছিল মিতালি রাজ-হরমনপ্রীত কৌরদের। এ বার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালেও তার পুনরাবৃত্তি হল। শেফালি ভার্মা, পুনম যাদবরা প্রতিযোগিতা জুড়ে ভাল খেলেও আসল দিনে পারলেন না। অন্যদিকে, হরমনপ্রীত, মন্ধানারা পুরো প্রতিযোগিতা জুড়েই হতাশ করলেন । যে ভাবে আত্মসমর্পণ করলেন হরমনপ্রীতরা, তার সঙ্গে ২০০৩ বিশ্বকাপ ফাইনালে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের দলের মিল খুঁজে পাচ্ছে ক্রিকেটদুনিয়া।