ত্বক হবে তরতাজা এবং কোমল, ঘরে বসেই নিজের হাতে বানিয়ে ফেলুন সুগন্ধী সাবান

সঠিক পদ্ধতি মেনে ঘন্টা খানেক সময় খরচ করলেই তৈরি করে ফেলতে পারবেন নানা রকমের সুগন্ধি সাবান।

সাবান তৈরি হবে, তাও আবার বাড়িতে! এমনটা আদৌ সম্ভব নাকি? আলবাত সম্ভব! কারণ সাবান তৈরি মোটেও ঘাম ঝরানো কাজ নয়। বরং সঠিক পদ্ধতি মেনে ঘন্টা খানেক সময় খরচ করলেই তৈরি করে ফেলতে পারবেন নানা রকমের সুগন্ধি সাবান। তাছাড়া প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে তৈরির কারণে ত্বককে নানা ক্যামিকেলর মারও সহ্য করতে হবে না। ফলে ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি তো ঘটবেই, সঙ্গে প্রাকৃতিক উপাদানের গুণে সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পাবে। এই সব পড়ে কি ভাবছেন এখনই সাবান তৈরির কাজে লেগে পড়বেন? যদি চেষ্টা করেন, তাহলে মন্দ হয় না।

  • প্রয়োজন শুধু দ’টি জিনিস। সাবানের বেস আর কিছু সুগন্ধীযুক্ত তেল। এর সঙ্গে রাখতে পারেন ঘরের কিছু জিনিস। যেমন কমলালেবুর খোসা, পাতিলেবুর খোসা, পছন্দের কোনও ফুলের পাঁপড়ি ব্যবহার করলে খুবই সুন্দর দেখায় সাবান।
  • সাবানের বেস কিনতে পাওয়া যায় সর্বত্রই। প্রথম বার সাবান বানাতে চাইলে, তেমন কিছু কিনে নেওয়াই ভাল। সেই বেস ছোট ছোট টুকরোয় কেটে নিয়ে তার পরে গলিয়ে ফেলতে হবে। সাবান গলানোর সময়ে একটি চামচ দিয়ে টানা নেড়ে যেতে হবে বস্তুটি। না হলে তা লেগে যেতে পারে পাত্রের গায়ে। এমনকি, পাত্রটা পুড়েও যেতে পারে।

আরও পড়ুন: বাড়িতে উদযাপন করলেও সাজুন মন খুলে, রইলো আপনার বছর শেষের মেকআপ টিপস

  • সাবধানে সাবানের বেস গলিয়ে ফেলতে পারলে সঙ্গে সঙ্গে কয়েক ফোঁটা সুগন্ধী তেল মিশিয়ে ফেলুন সেই থকথকে বস্তুটিতে। মিশ্রণটি ঠান্ডা হতে শুরু করার আগেই ঢেলে ফেলুন একটি সুন্দর পাত্রে। যেই আকারের সাবান চান, তেমন কোনও পাত্রে বাটার পেপার দিয়ে তার উপরে ঢেলে ফেলুন মিশ্রণটি।
  • থকথকে মিশ্রণের উপর দিয়ে ছড়িয়ে দিন নিজের পছন্দ মতো গোলাপ কিংবা অন্য কোনও ফুলের পাঁপড়ি। ফুল পছন্দ না হলে রাখুন কমলালেবু কিংবা পাতিলেবুর খোসা। কুচি কুচি করে সেই খোসা সাবানের গায়ে ছড়িয়ে দিলে, তা দেবে দর্শন ও ঘ্রাণের সুখ!
  • এর পরে ৫-৭ ঘণ্টা সময় দিন সাবানটা জমতে। তার পরে দেখুন নিজের হাতে বানানো সাবান কেমন লাগে ব্যবহার করতে।

আরও পড়ুন: আলু ভালোবাসেন? এবার তাকে কাজে লাগান রূপটান হিসেবেও