দলবদলের চেনা রাজনীতি! বহিষ্কৃত বৈশালী ডালমিয়া যোগ দিচ্ছেন বিজেপিতে

শনিবার অমিত শাহের (Amit Shah) সভাতেই আনুষ্ঠানিকভাবে গেরুয়াশিবিরে নাম লেখাতে চলেছেন বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়া ।
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

যেমনটা মনে করা হয়েছিল তেমনটাই ঘটতে চলেছে। তৃণমূল (TMC) থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পর এবার বিজেপিতে (BJP) যোগ দিচ্ছেন বৈশালী ডালমিয়া (Baishali Dalmiya)। শনিবার অমিত শাহের (Amit Shah) সভাতেই আনুষ্ঠানিকভাবে গেরুয়াশিবিরে নাম লেখাতে চলেছেন বালির বিধায়ক। এমনকী, বিধানসভা ভোটে বালি থেকেই ফের প্রার্থীও হতে পারেন তিনি। সূত্রের খবর তেমনই।

গত শুক্রবার শৃঙ্খলারক্ষা কমিটির বৈঠকের পর তাঁকে বহিষ্কার করে তৃণমূল (TMC)। এই খবর যখন সম্প্রচারিত হয়, তখন Zee ২৪ ঘণ্টায় ক্রসফায়ার অনুষ্ঠানে ছিলেন বালির বিধায়ক।

আরও পড়ুন:কৃষি আইনের বিরুদ্ধে রাজ্যের রেজোলিউশন, ভিক্টোরিয়ায় ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনির নিন্দা প্রস্তাব, তুলকালাম বিধানসভায়

তৃণমূলের যেসব নেতা আগেই বিজেপিতে যাবার ছক কষেছিল তারা হঠাৎই যাত্রাপালার বিবেকের ভূমিকায় অভিনয় করতে শুরু করেন। তাদের গলায় অভিমান ঝরে পরে। নির্বাচন সামনে না এলে তারা সেই অভিমান প্রকাশের সুযোগ পাচ্ছিলেন না। সূত্রের খবর শুভেন্দুর মত এরা অনেকেই বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছিল। দু’নৌকায় পা দিয়ে চলতে চাইছিলেন অনেকেই। কিন্তু এই নেতা নেত্রীদের সব খবর দিদিমনির কাছে ছিল। কিন্তু তারা মনে করতে দিদিমনি সেসব খবর রাখেন না।

বিজেপি নেতাদের থেকেও এই গিরগিটি টাইপ নেতারা পিকের ওপর বেশি রেগে রয়েছে। তাদের ধারণা যত নষ্টের গোড়া এই পিকে। তিনিই দিদিমনিকে সব খবর দিচ্ছেন। ফলে বেশি দিন রং বদলে কাজ হবে না। তাছাড়া তারা অনেকে এটাও বুঝে গিয়েছে যে আর টিকিট মিলবে না। সুতরাং করে খেতে হলে বিজেপিই ভালো। তৃণমূলীরা ব্যাপারটা এইভাবেই দেখছেন।

Zee ২৪ ঘণ্টায় ক্রসফায়ার অনুষ্ঠানেই বহিষ্কৃত তৃণমূল বিধায়ক বলেছিলেন, ‘আমি খুব খুশি হলাম। কংগ্রেস থেকে আসা লোকেদের কথা অনুযায়ী মুখ্যমন্ত্রী চলছেন। তৃণমূলে যাঁরা আছেন, তাঁদের চেয়ে অন্য দল থেকে আসা লোকেদের বেশি গুরুত্ব দেন। ভাল হল, আমাকে বিড়ম্বনায় ফেলা হল না। বলেছিলাম, দলের মধ্যে উইপোকারা পুরনো কর্মীদের কাজ করতে দেয় না, তাদের সরিয়ে দেওয়া উচিত। স্বচ্ছ ভাবমূর্তি মানুষের এখানে জায়গা নেই। নেতাদের সঙ্গে আসতে আসতে স্বচ্ছ ভাবমূর্তির ভোটাররাও সরে যাবে। ভিতরের খবর তুলে ধরতে পারব। রাজীব বা অন্য কারও মতো ব্যাখ্যা দেওয়ার প্রয়োজন হল না। মানুষের জন্যে কাজ করব, মানুষের পাশে থাকব।’

আরও পড়ুন: শীতের মাঝেই শুরু হবে বৃষ্টি, ভিজবে দক্ষিণবঙ্গের বহু এলাকা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest