অধীর চৌধুরীর দিল্লির বাড়িতে দুষ্কৃতী হানা, কর্মীকে মারধরের পরে লুঠ গুরুত্বপূর্ণ নথি

ওয়েব ডেস্ক: হিংসাদীর্ণ দিল্লিতে লোকসভায় কংগ্রেস দলনেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরীর বাড়িতে হানা দিল দুষ্কৃতীরা। সাংসদের অনুপস্থিতিতে মারঝধর করা হল কর্মীদের, ছিনতাই গিয়েছে গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র।

নয়াদিল্লির সি-১/৪ হুমায়ুন রোডের যে বাংলোয় লোকসভার কংগ্রেস দলনেতা অধীর চৌধুরী থাকেন, তার সঙ্গে অধীরের একটি অফিসও রয়েছে। মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৫টা নাগাদ বাড়ি সংলগ্ন সেই অফিসেই হামলা হয়েছে। তিন-চার জন দুষ্কৃতী আচমকা গালিগালাজ করতে করতে অধীরের বাংলো চত্বরে হাজির হয় বলে জানা গিয়েছে। প্রথমে তাদের ভিতরে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা জোর করে অধীরের অফিসটিতে ঢুকে পড়ে বলে অভিযোগ। সেই অফিসে যে কর্মীরা তখন ছিলেন, তাঁদের সঙ্গে এই দুষ্কৃতীরা হাতাহাতি শুরু করে দেয় বলে কংগ্রেসের তরফে জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্ক: কাবু দিল্লি-নয়ডা-লখনউ, ৪০ জন পড়ুয়া ভর্তি আইসোলেশন ওয়ার্ডে, ভাইরাস আক্রান্ত অভিভাবক

হাতাহাতিতেই থামেনি হামলাকারীরা। লোকসভার কংগ্রেস দলনেতার অফিসে বেশ কিছু ফাইল এবং কাগজপত্র তারা নষ্ট করেছে বলে অভিযোগ। যাওয়ার সময়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র তারা ছিনিয়ে নিয়ে গিয়েছে বলেও খবর। শুধু কর্মীরা নন, অধীর চৌধুরীর এক পরিজনও এ দিন হেনস্থার মুখে পড়েছেন বলে জানা গিয়েছে।ঘটনায় স্বভাবতই ক্ষুব্ধ কংগ্রেসের তরফে লোকসভায় দলনেতার জন্য জেড প্লাস নিরাপত্তা ব্যবস্থা দাবি করা হয়েছে। দ্রুত তদন্তের নিষ্পত্তির আশ্বাস দিয়েছে দিল্লি পুলিশ।

আরও পড়ুন: পুরভোটের আগে বড় ঘোষণা, এক লাখ বেকারকে ২ লাখ টাকা করে সাহায্য সরকারের

উল্লেখ্য, দিল্লির সাম্প্রতিক হিংসায় বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারের বিরুদ্ধে লাগাতার তোপ দেগেছেন অধীর। তাঁর উদ্যোগে রাজধানীতে রক্ষা পেয়েছেন ১১ জন বাঙালি। মঙ্গলবার সকালে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পদত্যাগ দাবি করেন৷ সংবাদসংস্থা এএনআই-কে তিনি জানান, ‘যাঁরা দায়িত্ব পালন করতে জানেন না, তাঁদের পদত্যাগ করা উচিত।’