দিল্লিতে নিহত বেড়ে ৪২, শিথিল হচ্ছে বিধিনিষেধ, আজই হিংসা বিধ্বস্ত এলাকায় যাবেন দিল্লির উপরাজ্যপাল

নয়াদিল্লি: দিল্লির সংঘর্ষের ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ৪২। এখনও থমথমে মৌজপুর বাবরপুর, জাফরাবাদের মতো বেশ কয়েকটি এলাকা। শুক্রবারের নমাজের আগে নিরাপত্তার লক্ষ্যে গুরুগ্রামে হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। হিংসার ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ৪৮টি এফআইআর দায়ের করেছে দিল্লি পুলিশ। দিল্লির হিংসার তদন্তে দু’টি বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করা হয়েছে।

দিল্লির পুলিশের তরফে জানান হয়েছে যে,  উত্তর পূর্ব দিল্লির বিভিন্ন জেলায় দুপুর ১২টা  থেকে বিকেল ৪টে পর্যন্ত ১৪৪ ধারা শিথিল করা হচ্ছে। একই পদক্ষেপ করা হবে ভোর ৪টে থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত।

হিংসার আবহেই রাজধানী শহরের কমিশনার বদল। শনিবার অবসর নেবেন দিল্লির পুলিশ কমিশনার অমূল্য পটনায়ক। তাঁর জায়গায় দিল্লির নতুন পুলিশ কমিশনার হবেন এস এন শ্রীবাস্তব। দিন তিনেক আগেই তাঁকে স্পেশাল কমিশনার (আইন-শৃঙ্খলা) পদে নিয়োগ করেছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে জানানো হয় যে, অরুনাচল প্রদেশ- গোয়া- মিজোরাম সহ অন্যান্য কেন্দ্রীয় শাসিত ক্যাডারের ১৯৮৫ ব্যাচের অফিসারই দিল্লির পরবর্তী কমিশনার হিসাবে শনিবার থেকে দায়িত্ব নেবেন। এদিন শ্রীবাস্তব বলেন, ‘দিল্লি হিংসায় আইবি কর্মী অঙ্কিত শর্মার মৃত্যুর ঘটনা ভয়ঙ্কর। পুলিশ প্রতিটি মামলাই সমান গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করবে।

দিল্লিতে হিংসা বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শনের জন্য পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দল গঠন করলেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। উপদ্রুত এলাকা ঘুরে দেখে প্রতিনিধি দল রিপোর্ট জমা করবেন।সিএএ বিরোধী আন্দোলনকে কেন্দ্র করে আগুন জ্বলছে রাজধানীতে। ক্রমশ বাড়ছে নিহতের সংখ্যা। গত বুধবারই টুইট করে দিল্লিতে শান্তি বজায় রাখার আবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। ‘কেন ৬৯ ঘন্টা পরে তিনি নীরবতা ভাঙলেন প্রধানমন্ত্রী?’  তা নিয়ে এদিন প্রশ্ন তুলেছেন কংগ্রেস নেতা কপিল সিবাল। তবে, মোদী টুইট আর্জি জানালেও এখনও চুপ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সিবাল বলেন, ‘অমিত শাহের হিংসা বিধ্বস্ত এলাকায় যাওয়া উচিত।’

অন্যদিকে, সোনিয়া-রাহুল-প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর বিরুদ্ধেও উস্কানিমূলক মন্তব্যের অভিযোগে এফআইআর দায়েরর আবেদন জমা পড়ল দিল্লি হাইকোর্টে। এ প্রেক্ষিতে কেন্দ্র সরকারের থেকে জবাব চেয়ে শুক্রবার নোটিস জারি করেছে দিল্লি হাইকোর্ট। অন্যদিকে, দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী মণীশ সিসোদিয়া, আপ বিধায়ক আমানাতুল্লা খান, এআইএমআইএম নেতা ওয়ারিস পাঠান ও আকবরুদ্দিন ওয়াইসির বিরুদ্ধে এফআইআর দায়েরের দাবিতে আদালতে আবেদনপত্র জমা পড়েছে। সেই প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক, দিল্লি সরকার ও পুলিশকে নোটিস জারি করেছে বিচারপতি ডি এন পটেল ও বিচারপতি সি হরি শঙ্করের বেঞ্চ।

communal violence in north east delhi 7b14f9d0 596a 11ea b6c0 f51d703f3d5c

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে হিংসার ঘটনায় কারা কারা জড়িত, কারা অর্থ জোগাচ্ছে, তা খুঁজে বের করার জন্য দিল্লি হাইকোর্ট এ দিন কেন্দ্রীয় সরকার, দিল্লি সরকার ও দিল্লি পুলিশকে নোটিস দিয়েছে। দিল্লির হিংসার ঘটনার তদন্ত শুরু ও তা এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্যই এই সব তথ্য প্রয়োজন। আগামী ৩০ এপ্রিল, পরবর্তী শুনানির দিন কেন্দ্র, দিল্লি সরকার ও দিল্লি পুলিশকে এ ব্যাপারে জানাতে বলেছে হাইকোর্ট।