করোনায় আক্রান্ত মেক-আপ আর্টিস্ট, কোয়ারেন্টাইনে সোহিনী

তাঁর মেকআপ আর্টিস্ট কোভিড-১৯ পজ়িটিভ হওয়ায় শুটিং বাতিল। গৃহবন্দি হলেন অভিনেত্রী সোহিনী সরকার। একই বাড়িতে থাকার জন্য প্রেমিক রণজয় বিষ্ণুও গৃহবন্দি।

আনলক পর্যায়ে সিনেমার শুটিংয়ে ছাড়পত্র পাওয়ার পরই শুরু হয়েছিল ‘এই আমি রেণু’ ছবির কাজ। সেই ছবির শুটিংয়েই ব্যস্ত ছিলেন সোহিনী। মূল চরিত্র রেণুর ভূমিকায় রয়েছেন সোহিনী সরকার। পুরোদমে চলছিল শুটিং। তবে সদ্য তাঁর মেক-আপ আর্টিস্ট শানু সিংহ রায়ের শরীরে মারণ ভাইরাসে উপস্থিতি ধরা পড়ে। আর এই খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন অভিনেত্রী।

শুটিং বাতিল করে চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী আপাতত সাত দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন সোহিনী সরকার। বয়ফ্রেন্ড তথা অভিনেতা রণজয় বিষ্ণুও সোহিনীর সঙ্গে একই বাড়িতে থাকায় তিনিও গৃহবন্দি। জানা গিয়েছে, সোহিনীর মেক-আপ করার পরই কোভিড টেস্ট করান শানু সিংহ রায়। শুটিংয়ের জন্য বিদেশে যাওয়ার কথা ছিল, তাই নিয়মমতো টেস্ট করাতে হয়। কোনওরকম উপসর্গ ছিল না তাঁর। আর তারপরই করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

আরও পড়ুন: আলোর পথের দিশারী প্রিয়াঙ্কা সরকার, পথশিশুদের হাতে তুলে দিলেন বই-খাতা

সোহিনী জানিয়েছেন, তাঁর এবং রণজয়ের শরীরে এখনও কোনওরকম উপসর্দ দেখা দেয়নি। তবে ৭ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন। তারপর করোনা পরীক্ষা করাবেন। রিপোর্ট ঠিকঠাক এলে তবেই শুটিং সেটে ফিরবেন। প্রসঙ্গত, এই ছবিতে সোহিনীর বিপরীতে অভিনয় করছেন সোহম চক্রবর্তী। রয়েছেন গৌরব চক্রবর্তী, কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ও। খবর পাওয়া মাত্রই ছবির বাকি শিল্পীদের শুটিংও স্থগিত রাখা হয়েছে। সোহিনী ফিরলে তবেই ফের ছবির শুটিং শুরু হবে আবার। সেক্ষেত্রে নতুন মেক-আপ শিল্পী নিয়ে কাজ করতে হবে অভিনেত্রীকে।

সমরেশ মজুমদারের গল্প অবলম্বনে এই ছবি। সোহম-সোহিনীর আগামী ছবির গল্পটা কীরকম? রোম্যান্টিক ড্রামা। গল্পের প্রেক্ষাপট আটের দশক। সুন্দরী যুবতী রেণু। কলেজে পড়াকালীন প্রেমে পড়ে সুমিত নামে একটি ছেলের। সম্পর্ক গড়ে ওঠে সুমিত এবং রেণুর। তবে ঘটনাচক্রে রেণুর বিয়ে হয়ে যায়। পরিস্থিতির শিকার হয়ে সরকারী চাকুরে বীরেনের সঙ্গেই সাত পাকে বাঁধা পড়ে রেণু। কিন্তু পুরনো প্রেমিক সুমিত? তাঁর সঙ্গে কি রেণুর সম্পর্কের ইতি এখানেই ঘটে নাকি অন্য মোড় নেয় বীরেন-রেণুর বৈবাহিক সম্পর্ক? উত্তর মিলবে সৌমেন শূরের ‘এই আমি রেণু’ ছবিতে।

আরও পড়ুন: ফের করোনা হানা টেলি পাড়ায়, কোভিড-১৯ পজিটিভ সায়ক চক্রবর্তী ও সৌমিলি ঘোষ বিশ্বাস