ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াইয়ে হার, প্রয়াত বাংলাদেশের ‘প্লেব্যাক সম্রাট’ এন্ড্রু কিশোর

দীর্ঘ ১০ মাস ক্যানসারের সঙ্গে যুদ্ধ করে হেরে গেলেন জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোর। সোমবার সন্ধ্যায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন তিনি। বেশ কিছুদিন ধরেই তাঁর শারীরিক অবস্থা ভালো ছিল না। ক্যানসারের লাস্ট স্টেজে লড়াই করছিলেন তিনি। হাসপাতালে তাঁকে অক্সিজেন সাপোর্ট দিয়ে রাখা হয়েছিল। কিন্তু আর যুদ্ধে জেতা হল না তাঁর।

এন্ড্রু কিশোরের বড় বোনের স্বামী ডা. প্যাট্রিক বিপুল বিশ্বাস কিশোরের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। শরীরে একাধিক জটিলতা নিয়ে এন্ড্রু কিশোর অসুস্থ অবস্থাতেই গতবছর সিঙ্গাপুরে গিয়েছিলেন। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাঁর শরীরে নন-হজকিন লিম্ফোমা নামের ব্লাড ক্যানসার ধরা পড়ে। সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক লিম সুন থাইয়ের অধীনে তাঁর চিকিৎসা শুরু হয়েছিল। কয়েক মাস ধরে সেখানেই তাঁর চিকিৎসা চলে।

আরও পড়ুন: আরও উজ্জ্বল হয়ে বেঁচে থাকো মহাকাশে! সুশান্তের নামে নক্ষত্রের নামকরণ ভক্তের

গত ১১ জুন রাতে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফেরেন এন্ড্রু কিশোর। সেখান থেকেই ডাক্তাররা তাকে জানিয়েছেন, লিম্ফোমা ব্যাক করেছে। ক্যানসার তাঁর ডান দিকের লিভার এবং স্পাইনাল কর্ডে ছড়িয়ে গিয়েছিল। সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন থাকাকালীনই তিনি হয়ত বুঝতে পারছিলেন, সময় ফুরিয়ে আসছে। স্ত্রীকে তিনি বলেছিলেন, ‘তুমি আজই আমাকে রিলিজ করো এখান থেকে। আমি আমার দেশে মরতে চাই, এখানে না।’ শেষমেশ দেশে ফিরেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন তিনি।

বাংলা গানের এই কণ্ঠশিল্পী ‘প্লেব্যাক সম্রাট’ নামে পরিচিত। বাংলাদেশের আধুনিক ও চলচ্চিত্রজগতের কালজয়ী অনেক গান তাঁর কণ্ঠে সমৃদ্ধ হয়েছে। সুখ-দুঃখ, হাসি-আনন্দ, প্রেম-বিরহ—সব অনুভূতির গানই তিনি গেয়েছেন। ১৯৫৫ সালের ৪ নভেম্বর তিনি রাজশাহীতে জন্মগ্রহণ করেন। সেখানেই তিনি বেড়ে উঠেছেন। দীর্ঘদিন পুরোদস্তুর পেশাদার কণ্ঠশিল্পী হিসেবে দুই বাংলায় গান করেছেন এন্ড্রু কিশোর। একের পর এক জনপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন তিনি।অবশেষে সকলকে ছেড়ে চলে গেলেন কিশোর। পড়ে রইল তাঁর গলা, কণ্ঠ, সুর…

আরও পড়ুন: ৩৫ পা দিলেন রণবীর সিং, মধ্যরাতে কী শুভকামনা জানালেন শ্যালিকা অনিশা?