Happy Birthday Deepika: ছিলেন জাতীয় স্তরের খেলোয়াড়, অভিনয়ের জন্য ছেড়েছিলেন ব্যাডমিন্টন!

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

বলিউড দর্শক দীপিকা পাডুকোনকে প্রাথমিকভাবে চিনেছিলেন প্রকাশ পাডুকোনের মডেল-কন্যা হিসেবে যখন প্রথম একটি টিভি বিজ্ঞাপনে তাঁকে দেখা যায়। ২০০৭-এর ছবি ‘ওম শান্তি ওম’ নিঃসন্দেহে দীপিকার অভিনেত্রী জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। কিন্তু অভিনেত্রী হিসেবে প্রথম ছবি নয়। তাঁর ডেবিউ ছবি ছিল কন্নড় ছবি ‘ঐশ্বর্য’। এবছর ৩৫ তম জন্মদিন পালন করছেন দীপিকা।

আজ যে এতটা সফল ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে, অনেকেরই অজানা একসময় তিনি ছিলেন ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়। কিন্তু অভিনয়ে করার প্রবল ইচ্ছায় ছেড়েছিলেন খেলা।জনপ্রিয় ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় পদ্মশ্রী খেতাব প্রাপ্ত প্রকাশ পাড়ুকোনের মেয়ে দীপিকা পাড়ুকোন। তাই পরিবার সূত্রে ছোটবেলা থেকেই ব্যাডমিন্টন খেলতেন। শুধু তাই নয় বাস্কেটবল টুর্নামেন্টেও খেলেছেন তিনি।

২০১২ সালে এক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দীপিকা বলেন, “আমি রোজ ভোর পাঁচটায় উঠতাম শারীরিক প্রশিক্ষণের জন্যে। এরপর স্কুলে যেতাম, স্কুল থেকে এসে আবার ব্যাডমিন্টন খেলতাম। পড়াশোনা শেষ করে ঘুমিয়ে পড়তাম।” গোটা স্কুল জীবনে অভিনেত্রী ব্যাডমিন্টন খেলেছেন এবং জাতীয় স্তরে চ্যাম্পিয়নশিপেও খেলেছেন।

পড়াশোনা আর খেলাধুলা পাশাপাশি দীপিকা শিশু মডেল হিসেবে প্রথম একটি বিজ্ঞাপনে কাজ করেছিলেন মাত্র আট বছর বয়সে। এরপর ক্রমে তাঁর জীবনের স্বপ্ন হয়ে দাঁড়ায় একজন ফ্যাশন মডেল হওয়া। একটি সাক্ষাৎকারে দীপিকা বলেছিলেন, “আমি বুঝতে পেরেছিলাম আমি ব্যাডমিন্টন খেলছি কারণ এটা আমার পরিবারে আছে। তাই আমি আমার বাবাকে জিজ্ঞেস করলাম, আমি কি খেলাটি ছাড়তে পারি? কিন্তু এটা শুনে তিনি একটুও দুঃখ পাননি।”

আরও পড়ুন: সৌরভের আরোগ্য কামনা করে ট্যুইট করলেন অভিনেত্রী নাগমা

বিখ্যাত সাবানের বিজ্ঞাপন থেকে সকলের নজর কাড়েন দীপিকা পাড়ুকোন। এরপর চলতে থাকে মডেলিংয়ের দীর্ঘ কেরিয়ার। ২০০৬ সালে কন্নড় ছবি দিয়ে বড়পর্দায় হাতে ঘড়ি হয়‌। ২০০৬ সালে মুক্তি পায় ‘ঐশ্বর্য’। নায়িকার ভূমিকায় ছিলেন দীপিকা পাডুকোন ও নায়কের ভূমিকায় কন্নড় ছবির জনপ্রিয় নায়ক উপেন্দ্র রাও। এছাড়া সহ-নায়িকার চরিত্রে ছিলেন ডেইজি বোপান্না। এই ছবিটি কিন্তু বক্স অফিসে ভাল সাড়া পেয়েছিল। অর্থাৎ ডেবিউ ছবিতেই বাণিজ্যিক সাফল্য পেয়েছিলেন দীপিকা।

‘ঐশ্বর্য’-র পরিচালক ছিলেন ইন্দ্রজিৎ লঙ্কেশ। এই ছবিটি রিমেক ছবি বলেই শোনা যায়। তেলুগু ছবি ‘মাম্মাথুড়ু’ অবলম্বনেই নির্মিত হয়েছিল দীপিকা-অভিনীত ‘ঐশ্বর্য’। তবে রিমেক হলেও তা অন্য ভাষায় এবং ২০০৬ সালে কন্নড় ছবির জগতের সবচেয়ে সফল ৫টি ছবির মধ্যে একটি।

২০০৬-এর শেষের দিকেই তাঁকে ‘ওম শান্তি ওম’-এর জন্য কাস্টিং করে ফেলেছিলেন ফারহা খান।আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে। একের পর এক ছবিতে নিজের অসামান্য অভিনয় দক্ষতা দিয়ে মন জিতেছেন দর্শকদের। তিনবার ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডস ছাড়াও আরও অনেক পুরস্কার ও স্বীকৃতি ও রয়েছে তাঁর ঝুলিতে।

এই মুহূর্তে দীপিকা বলিউড ইন্ডাস্ট্রি সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক নেওয়া তারকাদের মধ্যে একজন।শোনা গেছে, যশরাজ ফিল্মসের ব্যানারে আগামী ছবি ‘পাঠান’-র জন্যে ১৪ থেকে ১৫ কোটি টাকা পারিশ্রমিক চেয়েছেন দীপিকা।

আরও পড়ুন: রাজনীতি, হিংসা, টানটান উত্তেজনায় ভরপুর, ‘তাণ্ডব’ করতে আসছেন সইফ আলি খান!

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest