উন্মুক্ত বেবি বাম্প, মুগ্ধ করলেন ‘ভোগ’ কভার গার্ল অনুষ্কা শর্মা! শেয়ার করলেন মা হওয়ার অনুভূতি

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

ন’টা মাস। অসংখ্য অভিজ্ঞতা। বিভিন্ন পর্যায়। সম্ভবত একমাত্র শারীরিক অস্বস্তি, যার পরিণতিতে আসে চরম সুখ। সেটা কেবল এক জন মা-ই বুঝবেন। ঠিক সেই মুহূর্তে দাঁড়িয়েছেন অভিনেত্রী-প্রযোজক অনুষ্কা শর্মা। আর তাঁর সেই সব মুহূর্তগুলির কথা বললেন ‘ভোগ ইন্ডিয়া’ ম্যাগাজিনে। যাদের সঙ্গে তিনি একটি ফোটোশ্যুটও করেছেন। আর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেয়ে গিয়েছে গর্ভবতী অনুষ্কার ছবিগুলি।

হালকা গোলাপি রঙের লম্বা কার্ডিগানের মাঝে সন্তানের আভাস স্পষ্ট। বুক ঢাকা রয়েছে একই রঙের কাপড়ে। নীচে সেই রঙেরই লম্বা লিনেন পাজামা। ছবির উপর বড় বড় করে লেখা, ‘নতুন সূচনা অনুষ্কা শর্মা’। ক্যাপশনে লিখলেন, ‘কেবল নিজের জন্য তোলা। কেবল প্রাণের জন্য তোলা। খুব ভাল লাগল।’ নীচে পর পর কৃতিত্ব জানিয়েছেন ফটোগ্রাফার, স্টাইলিস্ট, মেকআপ আর্টিস্ট সহ প্রত্যেক জন শিল্পীকে।

আরও পড়ুন: বিয়ের গুঞ্জনের মাঝে বরফের দেশে পাড়ি দিলেন অঙ্কুশ-ঐন্দ্রিলা, রইল অ্যালবাম

স্বাভাবিকভাবেই মা হওয়ার অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিয়েছেন নায়িকা। তিনি বলেন, আমি জানি এটা সহজ হবে না, কিন্তু কখনও কখনও সেটাই করতে হয় যেটা তুমি করতে চাও। বাবা-মা হওয়ার সবচেয়ে বড় পাওনা হল সেটা আপনাকে নিজের উর্দ্ধে ভাবতে শেখায়। নিজের চেয়ে বেশি অন্য কাউকে ভালোবাসতে শেখায়’।

মাতৃত্বের এই সময়কাল অনুষ্কাকে ‘সিস্টারহুড’-এর গুরুত্ব বুঝতে শিখিয়েছে।প্রেগন্যান্সি এই সময়কালে যখনই দরকার পড়েছে তখনই তাঁর পরিচিতমহলের সকল মেয়েরা এগিয়ে এসে তাঁকে সাহায্য করেছে। অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিয়েছে প্রথমবার মা হতে চলা অনুষ্কার সঙ্গে।

প্রথম ত্রৈমাসিকের সময়টা বড্ড শারীরিক দুর্বলতার মধ্যে কেটেছিল অভিনেত্রীর। সারা ক্ষণ বমি বমি ভাব। এমনকি রান্নাঘরের কাছাকাছি যেতে পারতেন না। কোনও খাবারের গন্ধ পেলেই অনুষ্কার সারা শরীরে গুলিয়ে উঠত। তাঁর কথায়, ‘‘ঘ্রাণশক্তি এতটাই তীব্র হয়ে গিয়েছিল যেন মানুষের চামড়ার গন্ধও তাঁর নাকে আসত। খালি মনে হত, এই অস্বস্তির কি কোনও শেষ নেই? আশ্চর্যের বিষয়, একটা কথা মাথা থেকে কখনও বেরত না। সেটা হল, আচ্ছা আমি ঠিক সময়ে খেলাম তো? আমি সব পুষ্টিকর খাবার খেলাম তো? আমার বাচ্চাটা সুস্থ আছে তো?’’

অনুষ্কার কথায়, “আমি খুব ব্যালান্সড লাইফ কাটিয়েছি। ভবিষ্যতেও সেটাই চেষ্টা করব। ধ্যান করতাম প্রতিদিন। ধীরে ধীরে শরীরে যে পরিবর্তনগুলো হয়েছে, তার অভিজ্ঞতা অসাধারণ।” অনুষ্কা মনে করেন, প্রত্যেক শিশুই স্পেশ্যাল। তাই আলাদা করে তাঁর সন্তানকে লাইমলাইটে রাখতে চান না। এমনকি সোশ্যাল মিডিয়া থেকেও সন্তানকে দূরে রাখতে চান। বিরাটের সঙ্গে আলোচনা করেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন: সফট টয়ের ভিড়ে হট অবতারে নুসরত! মেয়েবেলা হাতছানি দিচ্ছে নায়িকাকে?

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest