হাসপাতালে শুয়ে ‘হুড় হুড় দাবাং’ গাইছেন ওয়াজিদ,ভাইরাল ভিডিয়ো

ওয়েব ডেক্স: রবিবার গভীর রাতে নক্ষত্রপতন বলিউড মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে। এদিন মাত্র ৪২ বছর বয়সে প্রয়াত মিউজিক পরিচালক জুটি সাজিদ-ওয়াজিদের ওয়াজিদ খান। 

ওয়াজিদের মৃত্যুর কয়েক ঘন্টার মধ্যেই ইন্টারনেটে ভাইরাল এই সঙ্গীতশিল্পীর একটি পুরোনো ভিডিয়ো। যেখানে হাসপাতালের বিছানায় বসে দাদা সাজিদ খানের জন্য গান গাইছেন ওয়াজিদ। দাদার জন্য হাসপাতালে বসেও একটাই গান বেছে নিয়েছেন ওয়াজিদ-‘হুড় হুড় দাবাং’। 

https://www.instagram.com/p/CA4vbGdgxuh/?utm_source=ig_web_copy_link

চারদিন ধরে চেম্বরের সুরানা হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ওয়াজিদ খান। কিডনিতে ইনফেকশন নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। দিন কয়েক আগেই তাঁর কিডনিতে অস্ত্রোপচারও হয়েছিল। রবিবার গভীর রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ওয়াজিদ। তাঁর করোনা রিপোর্টও পজিটিভ ছিল।

বলিউডে প্রায় দু দশক দীর্ঘ ওয়াজিদ খানের মিউজিক্যাল কেরিয়ার।১৯৯৮ সালে সলমন খানের প্যায়ার কিয়া তো ডরনা কিয়া ছবির সঙ্গে বলিউডে সফর শুরু সাজিদ-ওয়াজিদ জুটির। গত বাইশ বছরে এই জুটির সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য কাজ নিঃসন্দেহে দাবাং সিরিজ। এছাড়াও  হ্যালো ব্রাদার, তুম কো না ভুল পায়েঙ্গে, হাম তুমহারে হ্যায় সনম, তেরে নাম,গর্ব,পার্টনার,ওয়ান্টেড, থেকে এক থা টাইগার, ফ্রিকি আলি, অসংখ্য হিট ছবির মিউজিকের দায়িত্বভার পালন করেছেন সাজিদ-ওয়াজিদ। তাঁর সঙ্গীত সফরের সিকিভাগ জুড়েই ছিলেন সলমন খান ও তাঁর ছবি। 

সুর দেওয়া, গান লেখার পাশাপাশি ওয়াজিদ গান গেয়েওছেন। ‘পার্টনার’ ছবির ‘সোনি দে নাখরে’, ‘হেলো’ ছবিতে ‘মিতওয়া রে’, ‘ওয়ান্টেড’-এর ‘জলওয়া’, ‘লভ মা’, ‘তো সে প্যায়ার করতে হ্যায়’, ‘দবাং’ ছবির ‘হুড় হুড় দবাং’, ‘এক থা টাইগার’-এ ‘মাশাল্লাহ’, ‘বুলেট রাজা’ ছবির টাইটেল সং এবং অন্যান্য গান, ‘জয় হো’ ছবির টাইটেল সং গেয়ে জনপ্রিয়তা পান ওয়াজিদ।

Gmail 3