সোনা নয়, বিয়েবাড়িতে ট্রাই করুন এই ধরনের ব্ল্যাকপলিশের গয়না

শাড়ি হোক বা কুর্তি-লেগিংস কিংবা ওয়েস্টার্ন আউটফিট, সবের সঙ্গেই বেশ মানিয়ে যায় এই ব্ল্যাকপলিশ জুয়েলারি।

ট্র্যাডিশনাল গয়না পরার বদলে জেন ওয়াইয়ের পছন্দের তালিকায় এখন থাকছে জাঙ্ক জুয়েলারি। তার মধ্যে অনেকেরই ‘হট ফেভারিট’ ব্ল্যাকপলিশের গয়না। শাড়ি হোক বা কুর্তি-লেগিংস কিংবা ওয়েস্টার্ন আউটফিট, সবের সঙ্গেই বেশ মানিয়ে যায় এই ধরনের জুয়েলারি। এমনকি আজকাল বিয়েবাড়িতেও দেখা যাচ্ছে, অল্প বয়সীদের ঝোঁক ব্ল্যাকপলিশের দিকেই।

এখন এমনিতেই বিয়ের মরশুম। তাই সবার থেকে আলাদা ভাবে নিজেকে ব্ল্যাকপলিশ গয়নায় সাজিয়ে নেওয়ার প্রচুর সুযোগ রয়েছে হাতে। সকলেরই তাক লেগে যেতে পারে আপনার নতুন লুক দেখে। শুধু একটু মানানসই ভাবে সেজে নিতে হবে। আর কীভাবে, কেমন সাজবেন সেই ব্যাপারেই আপনাদের কিছু টিপস দিচ্ছি আমরা।

চোকার জাতীয় হার- যাঁরা শাড়ি পরতে ভালবাসেন, তাঁরা অনায়াসেই চোকার পরতে পারেন। ব্ল্যাকপলিশের চোকারে কাচ বসানো কাজ দেখতে দারুণ লাগে। টারসেল হিসেবে সরু চেন বা কালো সুতো ব্যবহার করতে পারেন। আজকাল অনেকেই ব্ল্যাকপলিশের গয়না তৈরি করেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন গয়নার বুটিকের খোঁজও পাওয়া যাবে সহজেই। শুধু পছন্দ করে কিনে ফেলার পালা। এছাড়াও বড় বা লম্বা হার, হাঁসুলি জাতীয় হারও ব্ল্যাকপলিশে দেখতে চমৎকার লাগে।

আরও পড়ুন: এ বছরের সেরা ১০ ফ্যাশন ট্রেন্ড কোনগুলি, দেখে নিন এক ঝলকে

ঝুমকা- মিরর ওয়ার্ক করা ব্ল্যাকপলিশের বড় ঝুমকা দেখতে খুব সুন্দর লাগে। শাড়ি কিংবা কুর্তি-লেগিংস বা শর্ট টপ-প্লাজোর সঙ্গেও পরা যায় এই ঝুমকা। অনেক ব্ল্যাকপলিশের ঝুমকাতে আবার মোতির কাজও থাকে। কানে বসানো টপ বা কানপাশা টাইপের দুল এবং ছোট ঝুমকাও রোজ পরার জন্য বেশ মানানসই। আজকাল ব্ল্যাকপলিশের বুগারিও পাওয়া যায়।

বালা বা চুরি- একদম ট্র্যাডিশনাল সাজের জন্য ব্ল্যাকপলিশের বালা, চুরি, ব্রেসলেট, রিস্টলেট সবই বেশ যোগ্য জুড়িদার। ব্ল্যাকপলিশের আংটিও এখন বেশ জনপ্রিয়। বড় আংটি পরা এখন ট্রেন্ড। আর সেই ট্রেন্ডে বাজিমাত করেছে ব্ল্যাকপলিশ।

নাকছাবি- যে পোশাকই পরুন না কেন, নাকছাবি পরা এখন ট্রেন্ড। নোস পিয়ারসিং না থাকলেও আজকাল ফলস নাকছাবি পরা যায়। যেকোনও সাজের সঙ্গে একটা আলাদা লুক দেয় ব্ল্যাকপলিশের নাকছাবি।

আরও পড়ুন: ‘ভ্যালেন্টাইনস ডে’-তে কোন পোশাকে নিজেকে সাজিয়ে তুলবেন? রইল টিপস…