করোনা নিয়ে মুসলিমদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ মন্তব্য, মধ্যপ্রাচ্যে চাকরি খোয়াচ্ছেন ভারতীয়রা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

ওয়েব ডেস্ক: মুসলিমদের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক মন্তব্য করে মধ্যপ্রাচ্যে চাকরি খোয়ালেন আরও তিন প্রবাসী ভারতীয়। অভিযোগ, ‘মুসলিমরা ভারতে করোনা ছড়াচ্ছেন’ বলে সোস্যাল মিডিয়ায় একাধিক পোস্ট করেছিলেন ওই তিন ব্যক্তি। এরপরই তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিল স্থানীয় প্রশাসন।

এর আগে একই কারণে আরও নয়জন প্রবাসী ভারতীয় তাঁদের চাকরি হারিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।স্বভাবতই পরপর এই ঘটনায় প্রবাসী ভারতীয়দের মনে তৈরী হয়েছে আতঙ্ক।

জানা গিয়েছে, ওমান, কুয়েত ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে বেশকিছু ভারতীয়র সোস্যাল মিডিয়ার প্রোফাইল থেকে মুসলিমদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষমূলক মন্তব্য করা হচ্ছিল। মূলত ভারতে নিজামুদ্দিন মারকাজের ঘটনাটি ঘটার পরই সোস্যাল মিডিয়ায় মুসলিম বিরোধী পোস্ট করা হতে থাকে বলে অভিযোগ। এমনকী, টেলিভিশন বা অন্যান্য সংবাদমাধ্যমেও এক শ্রেণির মানুষ মুসলিমবিরোধী প্রচার করতে শুরু করেন বলেও অভিযোগ।

আরও পড়ুন: বিদেশ থেকে নিখরচায় ফিরল ভারতীয়রা, শ্রমিকদের বেলায় ট্রেন ভাড়া কেন, এবার প্রশ্ন বিজেপি সাংসদের

করোনা নিয়ে গোটা দেশ তথা বিশ্ব যখন অস্থির তখন নিজামুদ্দিনকে সামনে রেখে বিদ্বেষ প্রচার শুরু হয়। নিজামুদ্দিন যে সব বিদেশী এসেছিলেন তারা কেউ পায়ে হেঁটে আসেননি। এসেছিলেন উড়ানে। ১৩ মার্চ কেন্দ্র নিজে বলেছে করোনা হেলথ ইমার্জেন্সি নয়। অথচ নিজামুদ্দিনের নাম করে মুসলিমদের বিরুদ্ধে করোনা থেকেও মারাত্মক ভাবে বিদ্বেষ সংক্রামিত করার চেষ্টা হয়। আরব মূলক এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিজে এর সমালোচনা করে। তড়িঘড়ি ঐক্যের বার্তা দিতে নামেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু ততদিনে বিষ ছড়িয়ে পড়েছে।

প্রসঙ্গত, মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলিতে বরাবরই ধর্মীয় উগ্রপন্থার বিরুদ্ধে কড়া অবস্থা নেওয়া হয়। আমিরশাহীতে প্রাক্তন ভারতীয় দূত টুইটারে জানিয়েছিলেন, আমেরিকার ৯/১১-এর সন্ত্রাসবাদি হামলা, বা মিশরের আরব বসন্ত আন্দোলনের পর মধ্যপ্রাচ্যে থাকা কিছু নাগরিক ধর্মীয় উগ্রপন্থাকে সমর্থন করেছিল। তখনই তাঁদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়। এমনকী বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পর উসকানিমূলক মন্তব্য করা পাকিস্তানি স্কুল শিক্ষিকাদের দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছিল। এমনিতেই করোনা পরিস্থিতিতে মুসলিমদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করা হচ্ছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বেশ কিছু দেশ। তাদের মধ্যে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলিও আছে। ভারতীয় দূত সেসময় দুদেশের দীর্ঘদিনের বন্ধুত্ব ও সহযোগিতার কথা তুলে ধরে ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মন্তব্য তুলে ধরে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু ১২ জন ভারতীয় চাকরি খোওয়ানোয় পরিস্থিতি আরও জটিল হল বলেই মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: করোনা প্রতিরোধী অ্যান্টিবডি আছে দেহে! দাবির পরেই পার্টিতে হাজির পপস্টার ম্যাডোনা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest