After 67 years, Air India heads back to founder Tata Sons

৬৮ বছর পর ‘ঘর ওয়াপসি’ Air India -র! ১৮ হাজার কোটিতে মালিকানা পেল TATA Sons

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

নতুন ডানায় ভর দিয়ে উড়ান শুরু করল এয়ার ইন্ডিয়া। শুক্রবার প্রায় ১৮ হাজার কোটি টাকায় রাষ্ট্রায়ত্ত্ব বিমান সংস্থাকে কিনে নিল টাটা গ্রুপ। এদিন বিকেল ৪টের সময় সাংবাদিক সম্মেলন করে সরকারের পক্ষ থেকে এই খবর জানানো হয়।

৬৮ বছর আগে টাটা-রাই ছিল এয়ার ইন্ডিয়া মালিক। তাই এই সংস্থা নিয়ে টাটা সন্সের আবেগ রয়েছে। ঋণের ভারে জর্জরিত এয়ার ইন্ডিয়ার নিলাম হয়েছিল আগেই। কিন্তু চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসেনি বলে জানানো হয়েছিল কেন্দ্রের তরফে। টাটা ছাড়াও আরও এক বেসরকারি বিমান সংস্থা স্পাইস জেটের কর্ণধার অজয় সিংহ এয়ার ইন্ডিয়ার শেয়ার কেনার জন্য দরপত্র জমা দিয়েছিলেন। ১৫ হাজার কোটি টাকায় মালিকানা পেতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু টাটাদের বিড সেই দরপত্রকে ছাপিয়ে যায়। তাই শেষ পর্যন্ত রতন টাটার দরপত্রেই ছাড়পত্র দিল কেন্দ্র। এই মালিকানা হস্তান্তরের মধ্যে রয়েছে এয়ার ইন্ডিয়ার এআই এক্সপ্রেস লিমিটেডের ১০০ শতাংশ শেয়ারহোল্ডিং এবং এয়ার ইন্ডিয়া স্যাটস এয়ারপোর্ট সার্ভিসেস প্রাইভেট লিমিটেডের ৫০ শতাংশ মালিকানা।

জানা গিয়েছে মোট ৭০ হাজার কোটি টাকার লোকসান হয়েছে এয়ার ইন্ডিয়ার। এই সংস্থার জন্য প্রত্যেকদিন সরকারের ক্ষতি হচ্ছে ২০ কোটি টাকা। এর আগেও একবার এয়ার ইন্ডিয়ার বেসরকারিকরণের চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু বিপুল ঋণের বোঝা থাকার কারণে কোনও সংস্থা উৎসাহ দেখাচ্ছিল না। ফলে, তখন সফল হয়নি কেন্দ্র। ঋণের বোঝা থাকা সত্ত্বেও আজও এয়ার ইন্ডিয়া দেশের মধ্যে অন্যতম বৃহৎ বিমান সংস্থা। বর্তমানে দেশের সব বিমানবন্দরের মধ্যে এয়ার ইন্ডিয়ার ডোমেস্টিক বিমানের জন্য বরাদ্দ ৪,৪০০ টি ল্যান্ডিং ও পার্কিং স্লট। আন্তর্জাতিক বিমানের জন্য বরাদ্দ ১৮০০ টি ল্যান্ডিং ও পার্কিং স্লট। এ ছাড়া দেশের বাইরে ৯০০ টি স্লট রয়েছে এয়ার ইন্ডিয়ার জন্য। ঋণগ্রস্ত এয়ার ইন্ডিয়ার মোট ১২৭টি উড়োজাহাজ রয়েছে।

এদিকে রতন টাটা টুইটারে পোস্ট করে লেখেন, ”পুনরায় স্বাগত এয়ার ইন্ডিয়া।” উল্লেখ্য, স্বাধীনতার আগে ১৯৩২ সালে টাটার হাত ধরে শুরু হয় টাটা এয়ারলাইন্স। পরবর্তী সময়ে ১৯৪৬ সালে নাম বদলে হয় এয়ার ইন্ডিয়া। ১৯৫৩ সালে টাটার হাত থেকে এই উড়ানকে অধিগ্রহণ করে কেন্দ্র। যদিও ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত সংস্থার চেয়ারম্যান হিসাবে কাজ করেন জে আর ডি টাটা। টাটারাই ফের মালিকানা পাওয়ায় একটি বৃত্তই যেন সম্পূর্ণ হল।

দেনার দায়ে ধুঁকছিল এই জাতীয় উড়ান সংস্থা। বাজারে এই মুহূর্তে তাদের ঋণের পরিমাণ ৪৩ হাজার কোটি টাকা। সরকার আগেই ঘোষণা করেছিল, এয়ার ইন্ডিয়ার ১০০ শতাংশ বিলগ্নিকরণ হবে। ৫০ শতাংশ অংশীদারিত্ব বিক্রি করা হবে এই সংস্থার আওতায় থাকা বিমান ওঠা-নামা সংক্রান্ত সংস্থার। এছাড়াও বিক্রি করা হবে এয়ার ইন্ডিয়ার মুম্বই ও দিল্লির বাড়িও।

এয়ার ইন্ডিয়ার কর্মীদের চাকরি একবছরের জন্য সুনিশ্চিত। তারপর যাদের যাদের রাখবে না টাটা গোষ্ঠী, তাদের ভলান্টারি রিটায়ারমেন্টের সুযোগ দেওয়া হবে। এছাড়াও সবাই পিএফ, গ্র্যাচুইটি ও মেডিক্যালের সুযোগ পাবেন।

বিলগ্নিকরণ দফতরের সচিব এদিন বলেন, হস্তান্তরের পর মোট ৪৬,২৬২ কোটি টাকার ঋণ থাকবে এয়ার ইন্ডিয়ার। এই ঋণ এআইএএইচএল(Air India Assets Holding Limited (AIAHL)-এর নামে হবে। চলতি বছর অগস্টের শেষে মোট ঋণ ছিল ৬৫,৫৬২ কোটি টাকা।

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest