Akhilesh Yadav said he won't contest Uttar Pradesh Assembly election 2022

মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী দূরঅস্ত, উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা ভোটেই লড়বেন না অখিলেশ যাদব

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

২০২২ সালে উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) নির্বাচনী লড়াই খানিকটা ফিকে হল। সে রাজ্যের বিরোধী দল সমাজবাদী পার্টির (SP) জাতীয় সম্পাদক তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব  (Akhilesh Yadav) এই লড়াই থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন। সোমবার তিনি এই ঘোষণা করেছেন। এই মুহূর্তে তিনি আজমগড়ের সাংসদ। তবে বাইশে অখিলেশকে মুখ্যমন্ত্রীর মুখ হিসেবে তুলে ধরতে চেয়েছিল তাঁর দল। কিন্তু সহকর্মীকে উৎসাহে জল ঢেলে সপা নেতার ঘোষণা, তিনি বিধানসভা ভোটে প্রার্থী হবেন না। সেইসঙ্গে এও জানালেন, আরএলডি’র  (RLD) সঙ্গে সমাজবাদী পার্টির জোট চূড়ান্ত। এবার আসন সমঝোতা নিয়ে আলোচনা চলবে।

সোমবার সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে ভোটে না লড়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন সমাজবাদী পার্টি (সপা)-র প্রতিষ্ঠাতা মুলায়ম সিংহ যাদবের পুত্র। রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এবং আজমগড়ের সপা সাংসদ যে দলের মুখ্যমন্ত্রীর মুখ, সে ব্যাপারে কোনও দ্বিমত প্রকাশ্যে আসেনি এখনও। তবে কী কারণে ভোটে লড়া থেকে বিরত থাকছেন অখিলেশ? সমাজবাদী পার্টির তরফেও উত্তর মেলেনি।

২০২২ সালের শুরুতেই বিধানসভা নির্বাচন উত্তরপ্রদেশে। নির্বাচনের জন্য ইতিমধ্যেই প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে বিজেপি, কংগ্রেস-সহ অন্য সব রাজনৈতিক দল।

কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ চলার মধ্যেই উত্তরপ্রদেশে মে মাসে ব্লক পঞ্চায়েতে বিপুল ভাবে পরাজিত হয়েছিল বিজেপি। কিছুটা অপ্রত্যাশিত ভাবেই ভাল ফলাফল করে অখিলেশের দল। অথচ তার পর থেকে মে মাসের সেই জয়কে বিধানসভা ভোটে কাজে লাগানোর জন্য সে ভাবে মাঠে দেখা যায়নি অখিলেশ তথা তাঁর দলকে। যেখানে কোভিড-মোকাবিলার ক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের ব্যর্থতাকে অস্ত্র করে এবং ব্লক পঞ্চায়েতে মানুষের প্রকাশ্য ক্ষোভকে কাজে লাগিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ার কথা, সেখানে তেমন কোনও বড় মাপের জনসভা করতে দেখা যায়নি অখিলেশকে। অথচ নির্বাচন আর খুব বেশি দূরে নেই।

রাজ্যের রাজনৈতিক শিবিরের মতে, গত দেড় বছরে অখিলেশ যতটা বিদেশে সময় কাটিয়েছেন, তার সিকিভাগও তাঁকে লখনউয়ে দেখা যায়নি। বিভিন্ন জেলা এবং প্রত্যন্ত গ্রামে তো নয়ই। গত বছর হাথরসে দলিত কিশোরীর ধর্ষণ-খুনের পরে গোটা দেশের সংবাদমাধ্যম, নেটমাধ্যমে ঝড় বয়ে গিয়েছিল। কিন্তু বিরোধী নেতাদের রাস্তায় নামতে সে ভাবে দেখা যায়নি। গো‌টা সময়টাই বিদেশে ছিলেন মুলায়ম-পুত্র। এর পর তাঁর সোমবারের এই সিদ্ধান্ত সুতরাং বেশ ‘তাৎপর্যপূর্ণ’।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest