সেন্ট্রাল ভিস্তা নিয়ে মিথ্যাচার চলছে, আদালতের রায়ের পর দাবি কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর

অতিমারী পরিস্থিতিতে লক্ষ লক্ষ লোকের সংক্রামিত হওয়ার সময়ে এই কাজ চলা নিয়ে দেশজুড়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। তবে এদিন দিল্লি হাইকোর্ট আজ জোর দিয়ে বলে, সেন্ট্রাল ভিস্তা নির্মাণ কাজ বন্ধের কোনও প্রশ্নই ওঠে না, আর শ্রমিকরা তো ওই জায়গাতেই রয়েছে।
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

সেন্ট্রাল ভিস্তার কাজে স্থগিতাদেশের আর্জি খারিজ করে দেয় দিল্লি হাইকোর্ট। শুধু তাই নয়, আবেদনকারীকে ১ লক্ষ টাকার জরিমানাও করেছে প্রধান বিচারপতি ডিএন প্যাটেল আর বিচারপতি জ্যোতি সিংয়ের বেঞ্চ। আর এরপরই এই বিষয়ে কেন্দ্রের তরফে কংগ্রেকে তোপ দাগতে সংবাদ সম্মেলন করেন কেন্দ্রী মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এদিন ফের দাবি করেন, বিরোধীরা সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প নিয়ে মিথ্যাচার ছড়াচ্ছে।

আরও পড়ুন : ইহুদি, জিউ, ইসরসাইলি আসলে সমার্থক, জেনে নিন এই শব্দগুলির আসল পরিচয়

এদিন হরদীপ সিং পুরী বলেন, ‘আমি বিগত বেশ কয়েকদিন ধরে দেখতে পাচ্ছি যে একটা মিথ্যে গল্প তৈরি করা হচ্ছে। যদি রাজনৈতিক দলগুলো সেই গল্প অনুসরণ করে, তাহলে তাদের সতর্ক হতে হবে।’ এদিন হরদীপ দাবি করেন, ‘এই প্রকল্পের জন্য কোনও ঐতিহাসিক, সাংস্কৃতিক, আইকনিক বিল্ডিং ভাঙা হচ্ছে না। তারা যেমন আছে, তেমনই থাকবে। এই প্রকল্পের সিদ্ধান্ত করোনা অতিমারীর আগে নেওয়া হয়েছিল।’ পাশাপাশি কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশের একটি প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে হরদীপ দাবি করেন, তিনি নিজেও নয়া সংসদ ভবন চেয়েছিলেন। ২০১২ সালে লোকসভার তত্কালীন অধ্যক্ষ মীরা কুমারও এই সংক্রান্ত সবুজ সংকেত দিয়েছিলেন।

অতিমারী পরিস্থিতিতে লক্ষ লক্ষ লোকের সংক্রামিত হওয়ার সময়ে এই কাজ চলা নিয়ে দেশজুড়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। তবে এদিন দিল্লি হাইকোর্ট আজ জোর দিয়ে বলে, সেন্ট্রাল ভিস্তা নির্মাণ কাজ বন্ধের কোনও প্রশ্নই ওঠে না, আর শ্রমিকরা তো ওই জায়গাতেই রয়েছে।

আরও পড়ুন : জেনে নিন মতুয়া সম্প্রদায় ও মানবতার জন্য গুরুচাঁদ ঠাকুরের ত্যাগ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest