আজ ফোকাস-এ

অবিলম্বে ‘এক দেশ এক রেশন কার্ড’ চালু করতে হবে বাংলায়, এল সুপ্রিম নির্দেশ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে ‘এক দেশ এক রেশন’ কার্ড চালু করার নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court)।

শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে পরিযায়ী শ্রমিকদের কথা মাথায় রেখে ‘ওয়ান নেশন ওয়ান রেশন কার্ড’ প্রকল্প দ্রুত চালু করার নির্দেশ দেয় দেশের শীর্ষ আদালত। পরিসংখ্যান মতে, ‘এক দেশ এক রেশন কার্ড’ প্রকল্পে যোগ দেওয়ার জন্য রেশন কার্ডের সঙ্গে আধারের সংযুক্তিকরণ, বায়োমেট্রিকের মাধ্যমে চিহ্নিত করার মতো কাজে পশ্চিমবঙ্গ অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে। কেন্দ্র সরকারের হিসেব অনুযায়ী, রাজ্যের প্রায় ৯৬ শতাংশ রেশন দোকানে ই-পিওএস (ইলেকট্রনিক পয়েন্ট অব সেল) যন্ত্র বসে গিয়েছে।

এই যন্ত্রে রেশন কার্ডের আসল মালিকই চাল-গম নিতে এসেছেন কি না, তা চিহ্নিত করা যায়। ৮০ শতাংশ রেশন কার্ডের সঙ্গে আধারের সংযুক্তিকরণও হয়ে গিয়েছে। ফলে এক দেশ এক রেশন কার্ড প্রকল্প চালু করতে কোনও বাধা নেই। এই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “রায়ের কথা এখনও জানি না। নির্দেশের কপি দেখে এই বিষয়ে বলব।”

আরও পড়ুন: Solar Eclipse: আগামীকাল বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ, দেখা যাবে ভারতেও, জেনে নিন সময়সূচী

ইতিমধ্যেই দেশের ৩৪টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ‘ওয়ান নেশন ওয়ান রেশন কার্ড’ প্রকল্প চালু করা হয়েছে। শুধুমাত্র দিল্লি, অসম ও পশ্চিমবঙ্গে এই প্রকল্প চালু হওয়া বাকি। এ রাজ্যেও এক দেশ এক রেশন কার্ড প্রকল্প চালু হলে বাংলার কোনও পরিযায়ী শ্রমিক দেশের অন্য যে কোনও রাজ্যে নিজের অংশের রেশন তুলতে পারবেন। ফলে রেশন সংগ্রহ করা আরও সহজ হয়ে যাবে। মূলত সেই কথা মাথায় রেখেই সুপ্রিম কোর্টের এই পদক্ষেপ।

বিশ্লেষকদের মতে, এই প্রকল্প চালু হলে পরিযায়ী শ্রমিকদের সুবিধা হবে। কারণ, এই প্রকল্পের আওতায় বাংলার কোনও পরিযায়ী শ্রমিক দেশের অন্য যে কোনও রাজ্যে নিজের অংশের রেশন তুলতে পারবেন। ফলে খাদ্যবণ্টন প্রক্রিয়া আরও সহজ হয়ে যাবে। এবং দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকরা লাভবান হবেন।

বিশ্লেষকদের মতে, এই প্রকল্প চালু হলে পরিযায়ী শ্রমিকদের সুবিধা হবে। কারণ, এই প্রকল্পের আওতায় বাংলার কোনও পরিযায়ী শ্রমিক দেশের অন্য যে কোনও রাজ্যে নিজের অংশের রেশন তুলতে পারবেন। ফলে খাদ্যবণ্টন প্রক্রিয়া আরও সহজ হয়ে যাবে। এবং দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকরা লাভবান হবেন।

আরও পড়ুন: হ্যাক হল কোউইন (CoWin) অ্যাপ থেকে তথ্য, চুরির দাবি ওড়াল কেন্দ্র

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

সম্পর্কিত পোস্ট