INDIAS FIRST COVID 19 PATIENT TESTS POSITIVE AGAIN

ভারতে প্রথম করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি, দ্বিতীয় তরঙ্গে সেই ছাত্রী ফের ‘কোভিড পজিটিভ’

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

করোনাভাইরাসে (tested positive for Covid-19) আক্রান্ত হয়ে মেডিক্যালের যে ছাত্রী (medical student) প্রথম ভারতের প্রবেশ করেছিলেন চিনের ইউহান প্রদেশ (Wuhan in China), ফের করোনা আক্রান্ত (Corona Positive) হয়েছেন তিনি। বছর ২০-র ওই ছাত্রী চিনের একটি মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়া। গত ১৩ জুলাই দ্বিতীয়বারের জন্য তাঁর করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসে। কেরলের ত্রিশূরের জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক (district medical officer) জানিয়েছেন, ওই পড়ুয়াকে ২৪ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। তবে তাঁর শরীরে এ বারে কোনও উপসর্গ নেই। আপাতত নিজের বাড়িতেই আইসোলেশনে রয়েছেন তিনি।

২০১৯-এর শেষের দিক থেকে চিনে করোনার দাপাদাপি প্রকট হলেও ভারতের মাটিতে তখনও আঁচ লাগেনি। ২০২০-র ৩০ জানুয়ারি প্রথম দুঃস্বপ্ন সত্যি হয়। ভারতেও ধরা পড়ে কোভিড ১৯ ভাইরাস। চিনের উহানে পাঠরত বছর ২০-র ওই ছাত্রী কেরলের বাড়িতে ফেরেন। সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই তাঁর শরীরে প্রথম ধরা পড়ে মারণ ভাইরাসের উপস্থিতি। সেমেস্টারের পর ছুটিতে বাড়ি ফিরেছিলেন তিনি। আক্রান্ত হওয়ার পর তাঁকে থ্রিসুর মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করানো হয়েছিল। প্রায় সপ্তাহ দুয়েক চিকিৎসার পর তাঁর রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।

আরও পড়ুন: Modi New Cabinet: ৪২% মন্ত্রীর বিরুদ্ধেই ঝুলছে ফৌজদারি মামলা : এডিআর রিপোর্ট

করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গের কালে অনেকেই দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হয়েছেন। একবার এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়। আর সেই অ্যান্টিবডি নতুন করে সংক্রমণ রুখতে সাহায্য করে। তবে বিশেষজ্ঞরা দেখেছেন, ওই অ্যান্টিবডির স্থায়ীত্ব খুব বেশিদিন হয় না। তাই, নতুন করে সংক্রামিত হওয়ার ঘটনা ঘটছে। তবে ঠিক কতজন এ ভাবে দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হয়েছেন, তার কোনও সঠিক পরিসংখ্যান নেই।

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমছে (decline in new confirmed cases of Covid-19)। ২০২১ সালের প্রথম দিকে যে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল, বর্তমানে তা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। কেরলের স্বাস্থ্য মন্ত্রী বীনা জর্জ (Kerala health minister Veena George) জানিয়েছেন, ফের রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে। তার মূল কারণ আনলকের প্রক্রিয়া শুরু হইয়ে যাওয়া। উল্লেখ্য, কেরলে বর্তমানে মোট অ্যাক্টিভ করোনা রোগীর  (active cases of Covid-19) সংখ্যা ১,১১,০৯ সুস্থতার হার (recovery rate) ৯৫.৮৯ শতাংশ। মৃত্যুর হার (case fatality rate) ০.৪৮ শতাংশ।

আরও পড়ুন: রদবদল করে নয়া ক্যাবিনেট কমিটিগুলিকে ঢেলে সাজালেন মোদী, গুরুত্বপূর্ণ কমিটিতে নমোর সঙ্গী স্মৃতি

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest