রোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে রাজধানীতে অক্সিজেন ও টিকার অভাব দেখা দেওয়ার পরই চরমে উঠেছিল কেন্দ্রের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরীবাল(Arvind Kejriwal)-র বিবাদ। এ বার কেজরীবালের বিরুদ্ধে জাতীয় পতাকার অবমাননার অভিযোগ আনলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ পটেল (Prahlad Patel)।

শুক্রবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ পটেল অভিযোগ করেন, সম্প্রতি একটি ভিডিয়ো কনফারেন্সে জাতীয় পতাকার কেবল সবুজ অংশটিকেই বড় করে দেখানো হয় এবং মাঝের সাদা অংশটিকে ছোট করে দেখানো হয়। এটি ভারতের জাতীয় পতাকার প্রতি অত্যন্ত অমাননাকর। মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপের জন্য ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকার ও দিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বৈজলের কাছে চিঠি লিখেছেন।

আরও পড়ুন : International Flights: ৩০ জুন পর্যন্ত বন্ধ আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা, নয়া নির্দেশিকা কেন্দ্রের

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী জাতীয় পতাকাকে কেবল ঘর সাজানোর জন্য ব্যবহার করছেন, এই অভিযোগ এনে প্রহ্লাদ পটেল বলেন, “যখনই মুখ্যমন্ত্রী কেজরীবাল বৈঠক করেন, আমার নজর ওনার চেয়ারের পিছনে রাখা জাতীয় পতাকার দিকে চলে যায়। প্রতিবারই দেখা যায় যে জাতীয় পতাকার মাঝের অংশটি সবুজ অংশে ঢাকা পড়ে গিয়েছে। এটি সম্পূর্ণ আইনবিরুদ্ধ ও জাতীয় পতাকার প্রতি অবমাননাকর। আমি ওই গোটা বিষয়টিতে মুখ্যমন্ত্রীকে দৃষ্টিপাত করতে বলছি। আমি জানিনা উনি অজান্তে নাকি স্বেচ্ছায় বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছেন।”

প্রসঙ্গত, গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই কেজরিওয়ালকে দেখা গিয়েছে টিভিতে সকলের জন্য ভাষণ দিতে। সেখানে তিনি দিল্লির কোভিড পরিস্থিতি, লকডাউন ও টিকাকরণ নিয়ে বক্তব্য রাখেন। বৃহস্পতিবারও তিনি তেমনই একটি ভাষণ দেন। সেখানে তিনি কেন্দ্রের কাছে আরজি রাখেন ফাইজার টিকা দ্রুত শিশুদের জন্য ব্যবহৃত হোক।

গত সপ্তাহে টিকাকরণের গতি কীভাবে বাড়ানো সম্ভব, সেবিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে পরামর্শও দেন কেজরিওয়াল। তাঁর এই ধরনের বক্তব্য পেশকে কেন্দ্র যে ভালভাবে নিচ্ছে না, তা জানা গিয়েছে কালই কেন্দ্রের তরফে দেওয়া এক বিবৃতি থেকে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘‘কোনও কোনও নেতা যেভাবে টিভিতে টিকাকরণ নিয়ে তাঁদের জ্ঞান বিতরণ করে আতঙ্ক ছড়াচ্ছেন তা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক।’’

বর্তমানে নরেন্দ্র মোদির ছবি সার্চ করলে দেখা যায়, পিছনে জাতীয় পতাকা, সামনে মোদী । কেউ কেউ অভিযোগ করেন, সবটা করা হয়েছে সচেতনভাবে। তাঁর আইটি সেল ও ছকের লোকজন এটা করেছে। যাতে তাঁর দেশপ্রেমী ভাবমূর্তি আরও বেশি করে মানুষের মনে গেঁথে দেওয়া যায়। অনেকে বলছেন, কেজরিও এবার ওই ছকেই চলছেন। তিনিও মোদির মতোই জাতীয় পতাকাকে কাজে লাগানোর চেষ্টার কসুর করছেন না। তাতেই আঁতে ঘা লাগছে বিজেপির। তারা মনে করছেন জাতীয় পতাকা পিছনে রেখে দেশপ্রেম কেবল মোদীকেই মানায়।

আরও পড়ুন : মোদীর হাতে ক্ষয় ক্ষতির রিপোর্ট তুলে দেবেন মমতা, থাকবেন না বৈঠকে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *