The irreparable loss of the Indian women's movement, Kamla Bhasin passed away

ভারতীয় নারী আন্দোলনের অপূরণীয় ক্ষতি, চলে গেলেন Kamla Bhasin

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন ভারতের নারী আন্দোলনের মুখ কমলা ভাসিন। বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। কমলা ভাসিনের প্রয়ানের খবর টুইট করে দিয়েছেন তাঁর সহযোদ্ধা কবিতা শ্রীবাস্তব। নিজের টুইটার হ্যান্ডলে কমলা ভাসিনের প্রয়ানের খবর দিতে গিয়ে কবিতা শ্রীবাস্তব লিখেছেন,”আমাদের প্রিয় বন্ধু কমলা ভাসিন ২৫ সেপ্টেম্বর ভোর তিনটের সময় আমাদের ছেড়ে চলে গিয়েছেন। ভারতীয় নারী আন্দোলনের ক্ষেত্রে, তথা গোটা দক্ষিণ এশিয়ার ক্ষেত্রেই এটা একটা বিরাট ধাক্কা। যতই প্রতিকূলতা আসুক তার বিরুদ্ধে কমলা লড়ে গিয়েছেন। আমাদের হৃদয়ে কমলা থাকবেন।”

বেশ কিছুদিন ধরেই ক্যান্সারে ভুগছিলেন কমলা। তাঁর ফুসফুসে জল জমে ছিল। শুক্রবার অবস্থা খারাপ হলে তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। শনিবার ভোর তিনটে নাগাদ চিকিৎসকরা জানিয়ে দেন কমলা ভাসিনের মৃত্যু হয়েছে।

সত্তরের দশক থেকেই নারী আন্দোলন নিয়ে সোচ্চার কমলা ভাসিন। ২০০২  সালে তিনি সঙ্গত নামক একটি ফেমিনিস্ট নেটওয়ার্ক তৈরি করেন। এই নেটওয়ার্কের মাধ্যমে কমলা প্রান্তিক আদিবাসী মহিলাদের প্রশিক্ষিত করার কাজ করতেন। এর পাশাপাশি লিঙ্গ তত্ত্ব, সমতা, মানবাধিকার, পুরুষতন্ত্র নিয়ে লেখা কমলার বইগুলি অন্তত ৩০ টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে। ভারত-সহ দক্ষিণ এশিয়ায় ‘ওয়ান বিলিয়ন রাইজিং’ আন্দোলনের পুরোভাগে থাকা কমলা তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে লড়াই চালিয়েছিলেন লিঙ্গবৈষম্যের বিরুদ্ধে, শান্তি প্রতিষ্ঠা ও মানবাধিকার রক্ষার লক্ষ্যে।

গ্রামাঞ্চলে বেড়ে ওঠা কমলা খুব সহজেই প্রান্তিক মহিলাদের সমস্যার কথা বুঝতেন। রাজস্থান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর করে কমলা চলে গিয়েছিলেন পশ্চিম জার্মানির মুনস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ে। জার্মানির ফাউন্ডেশন ফর ডেভলপমেন্ট ওরিয়েন্টেশন কেন্দ্রে বেশ কিছুদিন কাজ করে কমলা দেশে ফিরে আসেন। বাকি জীবনটা তিনি কাটান দেশের প্রান্তিক মহিলাদের হিতার্থে, নারীদের সমানাধিকারের কথা বলে। বিজ্ঞাপনী পণ্যতে নারীদের যেভাবে উপস্থাপন করা হয় সেই অন্যায়ের বিরুদ্ধে সর্বদা মুখ খুলেছেন কমলা। এক কথায় বললে ভারতীয় নারী আন্দোলনের প্রাণভোমরা ছিলেন কমলা। তাঁর মৃত্যু ভারতীয় নারী আন্দোলনের অপূরণীয় ক্ষতি।

কমলার মৃত্যুতে দিল্লির উপ মুখ্যমন্ত্রী মনীশ সিসৌদিয়া, মানবাধিকার আন্দোলনের কর্মী প্রশান্ত ভূষণ, হর্ষ মান্দার-সহ বহু বিশিষ্ট গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন। কবি ও বহু গ্রন্থের লেখিকা কমলা নিজেকে ‘প্রশিক্ষণ নেওয়া সমাজবিজ্ঞানী’ বলতে ভালবাসতেন।

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest