The Trinamool wants an anti-BJP alliance with the Congress

তৃতীয় ফ্রন্টের পুরনো গপ্পো নয়, কংগ্রেসকে সঙ্গে নিয়েই বিজেপি বিরোধী জোট চায় তৃণমূল

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

মমতা পরিণত রাজনীতিবিদ। তিনি কেবল আবেগ ভাসেন না। কখন কাকে পাশে রাখতে হবে। তার মত ভালো জানে না কেউ। বহু দিন ধরে লোকসভা এলেই তৃতীয় ফ্রন্টের কথা শোনা যায়। যা বাস্তব হয় না। এবার তৃণমূল স্পষ্ট করে দিল যে তৃতীয় ফ্রন্ট নয়। কংগ্রেসকে সঙ্গে নিয়েই জোটের পক্ষপাতী তারা । দলীয় মুখপত্রের সম্পাদকীয় কলমে এমনটাই জানিয়েছে তৃণমূল।

শনিবার প্রকাশিত সংখ্যার সম্পাদকীয় কলমে লেখা হয়েছে, ‘আমরা কখনওই কংগ্রেসকে বাদ দিয়ে জোটের কথা বলছি না। বরং কোনও তৃতীয় বিকল্প নয়। এবার সরাসরি বিকল্প জোট বিরোধীদের লক্ষ্য হওয়া উচিত।’ তবে কংগ্রেস যে সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে বিজেপি-কে রুখতে ব্যর্থ হয়েছে তাও উঠে এসেছে সম্পাদকীয় কলমে। লেখা হয়েছে, ‘কেন কংগ্রেস উপযুক্ত লড়াই দিতে পারেনি বা জোট-রসায়নে আগের ফাঁকফোকর ভরাট করতে কী কী করা প্রয়োজন, সেগুলি চিহ্নিত করা দরকার।’

আরও পড়ুন :  পুনরায় চালু হল রাহুল গান্ধীর Twitter হ্যান্ডেল, ‘সত্যমেব জয়তে’ টুইট কংগ্রেসের

তৃণমূলকে জোট শরিক হিসেবে পেতে গেলে ‘যোগ্য সম্মান’ দিতে হবে বলেও স্পষ্ট উল্লেখ করা হয়েছে দলীয় মুখপত্রে। লেখা হয়েছে, ‘আমরা দেশের স্বার্থে অ-বিজেপি গণতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষ দলগুলির ঐক্যের পক্ষে। আমরা ঐক্য চাই বলেই নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লিতে সনিয়া গাঁধীর বাড়ি গিয়ে বৈঠক করেছিলেন। রাহুল গাঁধীও ছিলেন সেখানে। সংসদের ভিতরে-বাইরে আমাদের বিজেপি বিরোধী ভূমিকা প্রতিষ্ঠিত। কিন্তু আমরা চাই একটা নির্দিষ্ট নীতি বা পদ্ধতিতে ঐক্য হোক। আজ হঠাৎ মনে হল, একটা ফোনে বলে দিলাম আমরা মিছিল করছি, চলে আসুন, এটা তৃণমূলের ক্ষেত্রে চলবে না।’ সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে বিজেপি বিরোধী জোট গড়তে সনিয়া ও রাহুলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন, সেকথাও উঠে এসেছেন দলীয় মুখপত্রে।

পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে কংগ্রেসের ভুমিকাকেও কটাক্ষ করা হয়েছে সম্পাদকীয় কমলে। লেখা হয়েছ, ‘আমাদের সদিচ্ছা্র প্রমাণ নতুন করে দিতে হবে না। যখন বিধানসভা ভোটের আগে সবরকম নখ-দাঁত দিয়ে বাংলায় এসে আমাদের আক্রমণ করেছে, তখন অনেকই তাতে ধুনো দিয়ে আলাদা লড়ে শূন্য পেয়েছে।’ সঙ্গে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, বিজেপি-কে হারাতে তৃণমূল একাই যথেষ্ট। তবে দিল্লিতে বিজেপি-বিরোধী কর্মসূচিতে তৃণমূলের অনুপস্থিতি নিয়ে যে অহেতুক জল্পনা শুরু হয়েছে, তা সম্পাদকীয় কলমের শুরুতেই খারিজ করে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন : গরিবরাই কেন্দ্রের অগ্রাধিকার, দাবি মোদীর ,অথচ দেশে গরিবের সংখ্যাই জানে না কেন্দ্র!

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest