Two omicron cases reported in India, both from Karnataka

Coronavirus: ভারতেও ওমিক্রনের থাবা, কর্নাটকে দুই রোগীর হদিশ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

অবশেষে নয়া বিপদ থাবা বসাল ভারতে। করোনা ভাইরাসের (Coronavirus) নয়া স্ট্রেন ‘ওমিক্রনে’র অস্তিত্ব মিলল। কর্ণাটকের (Karnataka) ২ ব্যক্তির শরীরে করোনার নমুনা পরীক্ষার ফলাফল জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের পর জানা গেল, তাঁদের দেহে থাবা বসিয়েছে ওমিক্রন (Omicron)। এঁদের একজনের বয়স ৬৬ বছর, অপরজন ৪৬ বছরের ব্যক্তি।  স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে সাংবাদিক বৈঠক করে এই খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। পাশাপাশি দেশবাসীকে সতর্কও করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রকের যুগ্মসচিব লব আগরওয়াল।

বৃহস্পতিবার এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ২৯টি দেশে ওমিক্রনে আক্রান্ত রোগীর হদিশ মিলেছে। গোটা বিশ্বে এখনও পর্যন্ত ৩৭৩ জন কোভিডের এই নতুন রূপে আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। কোভিড-এর এই নতুন রূপকে নিয়ে ইতিমধ্যেই বিশ্ব জুড়েই উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। ভারত-সহ একাধিক দেশ আন্তর্জাতিক বিমানে আগত যাত্রীদের ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ জারি করেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন-সহ অনেক দেশ সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া শুরু করেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, যাঁরা আগে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছে, তাঁরা আবারও ওমিক্রনে আক্রান্ত হতে পারেন। যদিও কতটা সংক্রামক তা এখনও স্পষ্ট নয়। আরটি-পিসিআর পরীক্ষা এই রূপকে দ্রুত ধরতে সক্ষম বলে জানিয়েছে হু। এই ভাইরাসের উপর কোভিড টিকার কার্যকারিতা কতটা তা জানার জন্য গবেষণা চলছে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে।

সম্প্রতি করোনাভাইরাসের নতুন ‘বি.১.১.৫২৯’ রূপকে উদ্বেগজনক বা ‘ভেরিয়েন্ট অব কনসার্ন’ হিসেবে চিহ্নিত করে সেটিকে ‘ওমিক্রন’ নাম দেয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)। নতুন এই রূপ নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে দেশ-বিদেশের বিশেষজ্ঞদের। যদিও বিশেষজ্ঞদের একাংশ বলছেন, ওমিক্রন নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার মতো যথেষ্ট তথ্য প্রকাশ্যে আসেনি। গবেষণা চলছে। ফলে অযথা আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। তবে সচেতনতা জরুরি।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest