ভারতের সঙ্গে নাড়ির টান, জেনে নিন কে এই কমলা হ্যারিস?

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

মার্কিন নির্বাচনের আগে মাস্টারস্ট্রোক দিলেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বিডেন। নির্বাচনে নিজের সঙ্গী হিসেবে তিনি বেছে নিলেন অ-শ্বেতাঙ্গ এবং প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত মহিলা কমলা হ্যারিসকে (Kamala Harris)। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে টেক্কা দেওয়ার জন্য এবার যৌথভাবে লড়াই করবেন বিডেন এবং কমলা। এই প্রথম আমেরিকার ভাইস প্রেসিডেন্ট পদের জন্য দক্ষিণ এশিয়ার বংশোদ্ভূত অ-শ্বেতাঙ্গ কোনও ব্যক্তি লড়াই করছেন।

ছক ভেঙে কিছু করার সংকল্প যেন রক্তেই আছে কমলা হ্যারিসের। ১৯ বছরে মা শ্যামলা গোপালন ক্যালিফোর্নিয়ায় স্নাতকোত্তরের পড়াশোনা করতে গিয়েছিলেন। আজ থেকে ৬২ বছর আগে দাঁড়িয়ে খুব কম সংখ্যক মহিলাই সেই কাজ করেছিলেন। বছর ৫৫-এর কমলা চেন্নাইয়ে জন্মেছিলেন। নিজেদের সংস্কৃতি এবং পরিচয়ের যোগ রাখতে কমলা এবং তাঁর বোন মায়ার সংস্কৃত নাম রেখেছিলেন তাঁদের মা। যিনি ক্যানসার নিয়ে গবেষণা করতেন। ২০০৯ সালে তাঁর মৃত্যু হয়। কমলার বাবা ডোনাল্ড হ্যারিস জামাইকার। তিনি স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। খুব কম বয়সেই কমলার বাবা-মা’র বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছিল।

ছোটোবেলায় কমলার জীবনের অনেকটা অংশ জুড়ে ছিলেন মা।দাদু পি ভি গোপালনের ব্যাপক প্রভাব ছিল কমলার জীবনে। ষাটের দশকের শেষের দিকে সরকারি চাকুরে গোপালনকে জাম্বিয়ায় পাঠানো হয়েছিল। সেখানে গিয়েছিলেন কমলা। পরে একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের সাক্ষাৎকারে ক্যালিফোর্নিয়ার সেনেটের বলেন, ‘মা ছাড়া আমার জীবনের অন্যতম প্রভাবশালী মানুষ হলেন আমার দাদু। উনি আমার অন্যতম প্রিয় মানুষ ছিলেন।’ ১৯৯৮ সালে দাদুর মৃত্যুর আগে পর্যন্ত তাঁর সঙ্গে দারুণ সম্পর্ক ছিল কমলার।

আরও পড়ুন: ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক রক্তের, চিনের সঙ্গে অর্থের, বলছেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী

তারইমধ্যে আমেরিকায় চলে আসেন। ওকল্যান্ডে বড় হতে থাকেন তিনি। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক স্তরের পড়াশোনা শেষ করে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন নিয়ে ভরতি হয়েছিলেন। তারপর আলামেদা কাউন্টির ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নির অফিসে কাজ শুরু করেছিলেন কমলা। ২০০৩ সালে সান ফ্রান্সিসকোর ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি হয়েছিলেন। তারপর একাধিক গুরুত্বপূর্ণ কমিটির সদস্য ছিলেন। ২০১৭ সালে প্রথম অ-শ্বেতাঙ্গ মহিলা সেনেটর হিসেবে ক্যালিফর্নিয়া থেকে নির্বাচিত হন কমলা।

একটা সময় কমলা মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হওয়ার লড়াইয়েও ছিলেন। কিন্তু ডেমোক্র্যাটদের দলের অন্দরের লড়াইয়ে জো বিডেনের (Joe Biden) কাছে হেরে যান তিনি। দলের অভ্যন্তরীণ নির্বাচনের সময় একাধিক বিতর্কে বিডেনকে তুলোধোনাও করেছেন কমলা।এবার তাঁরা যৌথভাবে লড়বেন রিপাবলিকানদের বিরুদ্ধে।

মার্কিন ইতিহাসে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ মহিলা এবং ভারতীয় বংশোদ্ভূত হিসেবে কোনও প্রধান রাজনৈতিক দলের হয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়াই করতে চলেছেন ক্যালিফোর্নিয়ার সেনেটর। শুধু তাই নয়, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ইতিহাসে তৃতীয় মহিলা হিসেবে ভাইস-প্রেসিডেন্ট পদে লড়বেন তিনি।

আরও পড়ুন: ইতিহাসে প্রথম! মার্কিন ভাইস-প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত কমলা হ্যারিস

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest