পাক অধীকৃত কাশ্মীরে বৌদ্ধ স্থাপত্যে ভাঙচুর,মন্দিরে লেখা ‘দিল দিল পাকিস্তান’

ওয়েব ডেস্ক: প্রায় ১২০০ বছর পুরনো বৌদ্ধ নিদর্শন ধ্বংস করা হয়েছে পাক অধিকৃত কশ্মীরে। পাক অধিকৃত কাশ্মীরের গিলগিট বাল্টিস্তানের এই ঘটনা মনে করিয়ে দিল বামিয়ানে বৌদ্ধমূর্তি ধ্বংসের স্মৃতি।

এই ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করল ভারত। এই অঞ্চলকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু ও কাশ্মীরের অংশ বলে মনে করে নয়াদিল্লি।সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের জবাবে বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেন, ‘পাকিস্তাবনের দ্বারা অবৈধ এবং বলপূর্বক অধিকৃত ভারতীয় ভূ-খণ্ডের তথাকথিত গিলগিট-বালটিস্তান এলাকায় অবস্থিত অমূল্য ভারতীয় বৌদ্ধ স্থাপত্যের ভাঙচুর, আঘাত এবং ধ্বংসের খবরে আমরা অত্যন্ত উদ্বেগ প্রকাশ করেছি।’

আরও পড়ুন: সবটাই গুজব! বিজয় মালিয়াকে ভারতে ফেরত পাঠানো হচ্ছে না,সাফ জানাল ব্রিটেন

তিনি আরও বলেন, ‘(এটা) অত্যন্ত উদ্বেগের বিষয় যে অবৈধভাবে পাকিস্তানের অধিকৃত ভারতীয় ভূ-খণ্ডে বৌদ্ধিক চিহ্ন গুঁড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে এবং নিষ্ঠুরভাবে ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক অধিকার ও স্বাধীনতাকে পদদলিত করা হচ্ছে। প্রাচীন সভ্যতা এবং সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের প্রতি এই ধরনের জঘন্য কার্যকলাপ অত্যন্ত নিন্দনীয়।

সাউথ ব্লকের তরফে জানানো হয়েছে, অমূল্য প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপত্যের সংরক্ষণের জন্য গিলগিট-বালটিস্তানে (পাকিস্তান সেই নামে ডাকা হয়) ভারতীয় বিশেষজ্ঞদের পাঠানোর জন্য় দ্রুত ছাড়পত্র চাওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে কড়া ভাষায় বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র বলেন, ‘অবৈধভাবে অধিকৃত সব এলাকা এখনই ছেড়ে দেওয়ার জন্য এবং নির্লজ্জভাবে সেখানকার বসবাসকারী মানুষদের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক অধিকার  ভঙ্গ রুখতে পাকিস্তানকে আহ্বান জানাচ্ছি।’

বৌদ্ধ মন্দির, হিন্দু মন্দির কিংবা ঐতিহাসিক মসজিদ ভেঙে রাজনীতির নোংরামি থেকে কী মুক্তি পাবে না ভারতীয় উপমহাদেশের এই দেশগুলি? আর কতদিন রাজনৌতিক দলের নোংরা খেলায় সঙ্গী হতে হবে আম জনতাকে। চেতনা সম্পন্ন বহু মানুষের এটি হৃদয়ের কথা।

আরও পড়ুন: ওয়াশিংটনে গান্ধী-মূর্তিতে গান্ধীর মূর্তিতে স্প্রে-পেন্টিং, অভিযুক্ত ফ্লয়েড হত্যার প্রতিবাদীরা

Gmail