১ নভেম্বর মার্কিন বাজারে করোনার ভ্যাকসিন! ভোটের আগে চমক ট্রাম্পের

রাশিয়া ইতিমধ্যেই করোনার (CoronaVirus) প্রতিষেধক বাজারে এনে ফেলেছে। অন্তত তেমনই দাবি পুতিনের।ভ্যাকসিন তৈরির দৌড়ে অনেকটা এগিয়েছে অক্সফোর্ড এবং অ্যাস্ট্রোজেনেকা। তাই আর দেরি করতে চান না মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোলান্ড ট্রাম্প। শোনা যাচ্ছে, ১ নভেম্বরই আমেরিকায় করোনার টিকা বণ্টন শুরু করে দিতে চান ট্রাম্প (Donald Trump)। সেজন্য বিভিন্ন রাজ্যের সরকারকে প্রস্তুত থাকতেও নির্দেশ দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

নভেম্বরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন হতে চলেছে। তার আগেই আমেরিকায় করোনা টিকার বণ্টন শুরু করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগোচ্ছে সে দেশের প্রশাসন। জানা গিয়েছে, অক্টোবরের শেষেই হয়তো করোনা টিকা দেওয়া শুরু হয়ে যাবে সে দেশে। এই মুহূর্তে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র করোনা এবং অর্থনীতি দুই দিক থেকেই বেশ চাপে। তাই মার্কিন প্রেসিডেন্ট এবার তড়িঘড়ি করোনার ভ্যাকসিন এনে সবাইকে চমকে দিতে চান।

আরও পড়ুন : পথে নেমে শোকপ্রকাশ নয়, হুসেনের শাহাদাত থাকুক মনে -জীবনে …

১১ অগাস্ট বিশ্বের প্রথম করোনা প্রতিষেধক হিসাবে রেজিস্ট্রেশন হয়ে গিয়েছে রাশিয়ার ‘Sputnik V’-এর নাম। এর পরেই বিশ্বের দ্বিতীয় করোনা টিকা হিসাবে Ad5-nCOV-এর রেজিস্ট্রেশন সেরে ফেলেছে চিনা ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট CanSino Biologics। এ বার করোনার টিকা বাজারে ছাড়ার তোড়জোড় শুরু করে দিল আমেরিকাও।

মার্কিন স্বাস্থ্য সংস্থা সিডিসি (CDC)-এর মুখপাত্র সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে করোনার সীমিত সংখ্যক টিকা বাজারে আনা হতে পারে। আমেরিকার ৫০টি রাজ্য ও পাঁচটি বড় শহরের স্বাস্থ্য আধিকারিকদের সঙ্গে এ বিষয়ে কথাবার্তাও চালাচ্ছে সিডিসি। মনে করা হচ্ছে, অক্টোবরের শেষে একটি নয়, করোনার দুটি টিকা বাজারে ছাড়তে পারে সিডিসি।

ট্রায়াল ও উৎপাদনের গতি বাড়িয়ে চলতি বছরের মধ্যেই করোনা প্রতিষেধক বাজারে ছাড়ার তোড়জোড় শুরু করে দিয়েছে দুই মার্কিন ফার্মাসিউটিকাল সংস্থা মোদার্না আর ফাইজার। জানা গিয়েছে, এই দুই সংস্থাই আলাদা আলাদা ভাবে ৩০ হাজার স্বেচ্ছাসেবকের উপর তাদের তৈরি করোনার টিকার হিউম্যান ট্রায়াল শুরু করে দিয়েছে। তাই মনে করা হচ্ছে, এই দুই সংস্থার তৈরি করোনার টিকাই প্রথম আমেরিকার বাজারে ছাড়া হবে।

আরও পড়ুন : রান্নায় বেশি হলুদ পরে গিয়েছে? জেনে নিন, স্বাদ ঠিক করার ১০টি উপায়