করোনা আবহে জয়েন্ট এন্ট্রান্স নিয়ে অনিশ্চয়তা, চলতি সপ্তাহেই সিদ্ধান্ত

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিকের পর এবার জয়েন্ট এন্ট্রান্স নিয়েও অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। ১১ জুলাই কি রাজ্যের জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষা হবে? সরকারের সঙ্গে কথা বলে এই সপ্তাহেই সিদ্ধান্ত বলে জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ড সূত্রে খবর। নজর রাখা হচ্ছে একাধিক সর্বভারতীয় প্রবেশিকার দিকেও।

চলতি বছর প্রায় ১ লক্ষ ছাত্রছাত্রী পরীক্ষায় বসবেন। ফি বছর মোট পরীক্ষার্থীর ৪০ শতাংশ পড়ুয়াই ভিন রাজ্যের। সূচি অনুযায়ী ঠিক ছিল জুলাই মাসেই হবে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। কিন্তু সেই পরীক্ষা বাতিল হয়ে গিয়েছে। এই পরিস্থিতি ওই সময়ে কীভাবে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা হবে তা নিয়ে তৈরি হয়েছে দ্বন্দ্ব। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ডের পক্ষ থেকে সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে চলতি সপ্তাহে নেওয়া হতে পারে সিদ্ধান্ত। খবর জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ড সূত্রে।

করোনা আবহে ট্রেন বন্ধ। জুলাই পরিস্থিতি কেমন থাকবে তা এখনই বলা যাচ্ছে না। এদিকে শুধু এরাজ্যেৎ নয়, ভিন রাজ্য থেকেও আসবেন পরীক্ষার্থীরা। সেক্ষেত্রে কীভাবে সবটা সামাল দেওয়া যায় তা নিয়ে সরকারের সঙ্গে বৈঠকের ভাবনা বোর্ডের। যদি ১১ জুলাই এই পরীক্ষা না নেওয়া যায় সেক্ষেত্রে বাতিল করা সম্ভব না। পিছিয়ে দিতে হবে পরীক্ষা। কারণ এটা প্রবেশিকা। ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ভর্তি থেকে প্রফেশনাল কোর্সে ভর্তির পরীক্ষা জয়েন্ট এন্ট্রান্স। সর্বভারতীয় স্তরে ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি সহ যে নিয়ামক সংস্থা আছে তারা পরীক্ষা নিয়ে কী সিদ্ধান্ত নিচ্ছে সেদিকেও নজর দেওয়া হতে পারে বলে বোর্ড সূত্রে খবর।

আরও পড়ুন: আজ হচ্ছে না মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিকের পরীক্ষাসূচি ঘোষণা, বাতিল সাংবাদিক সম্মেলন

এ প্রসঙ্গে জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ডের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ভাস্কর গুপ্ত বলেন, “যখনই হোক না কেন পরীক্ষা যেভাবে নেওয়া হয়, সেভাবেই নিতে হবে। অন্য যে কোনও ধরনের পদ্ধতিতে পরীক্ষার কথা যদি ওঠে যেমন  অনলাইনে বা ওপেন বুক পদ্ধতিতে। এই ধরনের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় কিন্তু কোনও পড়ুয়ার মেধাকে যাচাই করা সম্ভব নয়। অবশ্যই দেখতে হবে সর্বভারতীয় স্তরে কীভাবে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে। সেক্ষেত্রে অপেক্ষা করার প্রয়োজন হলে তাই করতে হবে।“  সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্স বা অন্য রাজ্যে কীভাবে পরীক্ষা হচ্ছে তা দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে বলে মনে করছেন মৌলানা আবুল কালাম প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সৈকত মৈত্রের।

এ প্রসঙ্গে জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ডের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ভাস্কর গুপ্ত বলেন, “যখনই হোক না কেন পরীক্ষা যেভাবে নেওয়া হয়, সেভাবেই নিতে হবে। অন্য যে কোনও ধরনের পদ্ধতিতে পরীক্ষার কথা যদি ওঠে যেমন  অনলাইনে বা ওপেন বুক পদ্ধতিতে। এই ধরনের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় কিন্তু কোনও পড়ুয়ার মেধাকে যাচাই করা সম্ভব নয়। অবশ্যই দেখতে হবে সর্বভারতীয় স্তরে কীভাবে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে। সেক্ষেত্রে অপেক্ষা করার প্রয়োজন হলে তাই করতে হবে।“  সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্স বা অন্য রাজ্যে কীভাবে পরীক্ষা হচ্ছে তা দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে বলে মনে করছেন মৌলানা আবুল কালাম প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সৈকত মৈত্রের।

আরও পড়ুন: IAF Recruitment: বায়ুসেনায় নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি, শুরু হয়েছে রেজিস্ট্রেশন

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest