একসপ্তাহের জন্য উত্তরবঙ্গ সফরে যাচ্ছেন রাজ্যপাল, বাংলা ভাগ নিয়ে জোর চর্চা

বাংলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে অভিযোগ জানাতে বেশ কয়েকদিন ধরে দিল্লিতেই পড়েছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। আর সূত্রের খবর, সেই সফরেই রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে দেখা করে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে নোট জমা দিয়েছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়৷ দিল্লি সফরে গিয়ে গত ১৭ জুন রাষ্ট্রপতি ভবনে যান সস্ত্রীক রাজ্যপাল৷ সেখানেই রাষ্ট্রপতিকে নোট দেন রাজ্যপাল। কিন্তু সেই বৈঠকের ছবি প্রকাশ্যে আসতেই প্রশ্ন তুলল তৃণমূল। রাজ্যের শাসক দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ ট্যুইটে ওই বৈঠকের ছবি দিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন, রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে যাওয়া রাজ্যপাল কী করে সঙ্গে স্ত্রী’কে নিয়ে যান? দ্বিতীয়ত, ছবিতেই স্পষ্ট, রাষ্ট্রপতির দিকে পা তুলে বসে আছেন রাজ্যপাল। এই বিষয়টি নিয়েও সরব হয়েছেন কুণাল।

আরও পড়ুন : তবলিগ জামাত করোনা ছড়াচ্ছে, এই অপপ্রচারের দায়ে তিন টিভি চ্যানেলকে লক্ষাধিক টাকা জরিমানা

এদিকে রবিবার রাজ্যপালের ট্যুইট থেকে জানা গেল, সোমবার উত্তরবঙ্গ সফরে রওনা দিচ্ছেন রাজ্যপাল। সেখানে একসপ্তাহ তিনি উত্তরবঙ্গে থাকবেন। ২১ জুন দুপুরে বাগডোগরায় পৌঁছবেন তিনি। সেখান থেকে কালিম্পং হয়ে দার্জিলিংয়ে যাবেন রাজ্যপাল। বাগডোগরায় নেমে সাংবাদিক বৈঠক করার কথা রয়েছে তাঁর। কিন্তু কেন হঠাৎ এই সফর তা তিনি জানাননি। ওখানে গিয়ে যদি পৃথক গোর্খাল্যান্ড বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল নিয়ে কোনও মন্তব্য করেন তাহলে বোঝা যাবে কেন্দ্রীয় সরকারের অবস্থান বলে মনে করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার নয়াদিল্লি সফরে যান রাজ্যপাল। সেখানে রাষ্ট্রপতি থেকে মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান–সহ একাধিক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের অপসারণের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে কয়েকটি চিঠি পাঠিয়েছেন। তারই মধ্যে নয়াদিল্লি সফরে গিয়ে রাজ্যপাল সস্ত্রীক দেখা করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে। রাতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কাছেও তিনি গিয়েছিলেন। এবার উত্তরবঙ্গ সফরে রাজ্যপাল।

সূত্রের খবর, দিল্লি গিয়ে প্রায় সকলের কাছেই রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভেঙে পড়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। দিল্লির প্রায় সকলকেই রাজ্যপালের দেওয়া নোট বা রিপোর্টে মূলত রাজ্যের ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে তথ্য রয়েছে বলে খবর৷ রাজ্যে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনাও ঘটছে বলেও অভিযোগ করেছেন তিনি৷ শুধু তাই নয়, রাষ্ট্রপতি হিসেবে যাতে তিনি নিজের ক্ষমতা অনুযায়ী যথাযথ পদক্ষেপ করেন, রামনাথ কোবিন্দকে রাজ্যপাল সেই অনুরোধও করেছেন বলে রাইসিনা হিল সূত্রে খবর৷ ট্যুইটারে অবশ্য রাজ্যপাল দাবি করেছেন, রাষ্ট্রপতির সঙ্গে তাঁর সাক্ষাৎ নেহাতই সৌজন্যমূলক ছিল৷ আর বৈঠক নিয়েই সরব হয়েছে তৃণমূল। তবে, তা বিষয় নিয়ে নয়, রাষ্ট্রপতি দরবারে রাজ্যপালের ‘আচরণ’ নিয়ে।

আরও পড়ুন : ইরানের নতুন প্রেসিডেন্টকে নিয়ে ‘গভীর উদ্বেগে’ ইসরায়েল