Mamata Banerjee joins booth to booth campaign at Bhabanipur

Bhabanipur By-Election: ২৫-এর পল্লি থেকে ১৬ আনা মসজিদ এলাকা, আচমকাই ভোট-প্রচারে মমতা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

ভবানীপুরে উপনির্বাচনের নির্ঘণ্ট ঘোষণার পর একটি কর্মিসভা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। সোমবার নবান্ন থেকে ফেরা পথে ঝটিকা জনসংযোগ সারলেন তিনি। গেলেন ৭৩ ও ৭৭ নম্বর ওয়ার্ডে।

এ দিন বিকেল চারটে নাগাদ ৭৭ নম্বর ওয়ার্ডে একবালপুরে ১৬ আনা মসজিদে যান মমতা (Mamata Banerjee)। সেখানে মুসলিম সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলেন। তাঁদের সুবিধা-অসুবিধার খোঁজখবর নেন। ইমামের সঙ্গেও কথাবার্তা হয় তৃণমূল নেত্রীর। তাঁর সঙ্গে ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim)।

৭৩ নম্বর ওয়ার্ডেই মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি। সেখানেই তৃণমূল সভা চলছিল। মঞ্চে ছিলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সিরা। তবে সভায় অংশ নেননি মমতা। হাতে মাইক নিয়ে তিনি বলেন,’নির্বাচন সংক্রান্ত বিধিনিষেধের জন্য থাকতে পারছি না। সভার অনুমতি নিয়েছিল তৃণমূল। কিন্তু আমার থাকার অনুমতি নেওয়া হয়নি। এখন তো দোরে দোরে ঘুরতেও চারজনের বেশি হলে চলবে না।’

দক্ষিণ কলকাতার প্রাক্তন সাংসদ মমতা এই আসনে ২০১১-র উপনির্বাচন, ২০১৬-র নির্বাচনে লড়েছেন। দু’বারই বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছেন তিনি। কিন্তু কোনও লড়াইকেই যে তিনি ছোট করে দেখতে চান না তা জানিয়ে আগেই কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন মমতা। সোমবার নবান্ন থেকে ফেরার পথে আচমকাই মমতা যান কলকাতা পুরসভার ৭৭ নম্বর ওয়ার্ডে। জন সংযোগের পাশাপাশি কর্মীদের সঙ্গে আড্ডাও দেন। খিদিরপুরের ২৫-এর পল্লি দুর্গাপুজো যে পাড়ায় হয় সেখানেও যেমন তিনি গিয়েছিলেন, তেমনই যান ১৬ আনা মসজিদ এলাকাতেও।

খিদিরপুর এলাকার ৭৭ নম্বর ওয়ার্ড দিয়েই মমতার প্রচার শুরুকে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিজেপি। মমতা ওই এলাকা ছাড়ার প্রায় পর পরই টুইট করেন বাংলায় বিজেপি-র সহ-পর্যবেক্ষক অমিত মালব্য। তাঁর দাবি, ভবানীপুরের জয় নিয়ে তিনি নিশ্চিত নন বলেই ১৬ আনা মসজিদে গিয়েছিলেন মমতা। এই সফর আচমকা নয় বরং পরিকল্পিত বলেই দাবি করেছেন মালব্য।
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest