‘যোগী-মমতা একই লাইনে দাঁড়িয়ে’, রাজ্যে ধর্ষণের ঘটনার কথা তুলে আক্রমণ সেলিমের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

হাথরস থেকে বলরামপুর, উত্তরপ্রদেশে একের পর এক ধর্ষণের ঘটনার প্রতিবাদে কাল পথে বাম, কংগ্রেস, তৃণমূল সব দলই। প্রতিবাদ মঞ্চ থেকে বিজেপিকে একহাত নেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও এসবই তাঁর ‘দ্বিচারিতা’ বলে উল্লেখ করেছেন সিপিআইএম নেতা মহম্মদ সেলিম। রাজ্যে বিভিন্ন ধর্ষণের ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে কড়া আক্রমণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রীকে।

সেলিম তোপ দাগেন, “পার্কস্ট্রিটের ঘটনার সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে বলেছিলেন, কোনও রেপ হয়নি, সাজানো ঘটনা। কয়েকদিন আগেও রাজগঞ্জে প্রশাসনের কেউ যায়নি। আর এখানে তিনি নাটক করছেন! আপনি আচরি ধর্ম অপরে শিখাও। যোগী সরকার যেভাবে রাতের অন্ধকারে দেহ পুড়িয়ে দিয়েছে, আমরাও নিমতলা শ্মশ্মানে তৃণমূলের নাটক দেখেছি। কলকাতা পুলিসকে দিয়ে গরিব ট‍্যাক্সি ড্রাইভারের মেয়েটাকে কী করা হয়েছিল? যোগী আর মমতা এক‌ই লাইনে দাঁড়িয়ে। নিজের রাজ‍্যে যখন ঘটনা ঘটছে তখন চুপ।”

আরও পড়ুন : যোগীর রাজ্যে ফের উদ্ধার দলিত নাবালিকার ক্ষতবিক্ষত দেহ , ধর্ষণ হয়েছে, বলছে পরিবার

সেলিমের কথায়, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারে এসেছেন মিথ‍্যাচারের রাজনীতির মধ‍্য দিয়ে। আজ তাঁর দ্বিচারিতা ধরা পড়ছে। আমরা চাই শাস্তি হোক। হাথরস, বলরামপুরের দোষীদের শাস্তি হোক। পাশাপাশি আমাদের রাজ‍্যকেও যারা বলরামপুর, উন্নাও, হাথরস বানাচ্ছেন, তাঁদের‌ও শাস্তি হোক।”

সেলিম বলেন, “উত্তরপ্রদেশের ঘটনা সারা দেশকে নাড়িয়ে দিয়েছে। কীভাবে যোগী সরকার প্রশাসনকে কাজে লাগায় সবাই দেখেছে। প্রধানমন্ত্রী চুপ। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজ তার প্রতিবাদ মিছিল করলেন। সাংসদ প্রতিনিধিও পাঠিয়েছিলেন। রাহুল গান্ধীকে যখন ঢুকতে দেওয়া হয়নি। তখন গতকাল তাঁরা অ্যাকশন রিপ্লে করতে গিয়েছিলেন। তাদের আটকানোটা অন‍্যায়।”

তিনি বলেন, প্রশ্নটা হচ্ছে এই রাজ‍্যে যখন দাঙ্গা হয়েছে, ধূলাগড় সহ বিভিন্ন জায়গায় আমরা যাওয়ার চেষ্টা করেছি, মমতার সরকার আটকেছে। যে সাংসদ গেলেন তাঁর এলাকায় কামদুনির ঘটনা ঘটেছিল। উনি কি কখন‌ও গিয়েছিলেন? এখন বিজেপিতে যোগদান করেছেন সব‍্যসাচী বাবু। সেইসময় তাঁকে দিয়ে পিকনিক, ফুটবল টুর্নামেন্ট, আনন্দ‌-অনুষ্ঠানের ব‍্যবস্থা করা হয়েছিল ওখানকার গ্রামের মানুষের মনোবল ভাঙার জন‍্য এবং কেনাবেচার জন‍্য।”

আরও পড়ুন : ‘যতই রাম মন্দির হোক, উত্তরপ্রদেশে জঙ্গলের রাজত্ব চলছেই’, কটাক্ষ শিব সেনার

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest