করোনায় মৃত্যু মেয়ের, দেহ আগলে রাতভর বসে রইলেন সন্তানহারা বৃদ্ধ বাবা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

করোনায় মৃত মেয়ের মরদেহ আগলে রাতভর বসে রইলেন বাবা। বহুক্ষণ পর যদিও স্থানীয়দের তৎপরতায় দেহ দাহের বন্দোবস্ত হয়েছে। মহাষ্টমীতে মর্মান্তিক ঘটনার সাক্ষী নাগেরবাজারের (Nagerbazar) যুগিপাড়া।

বাবা সরকারি চাকরি করতেন। বর্তমানে তিনি অবসরপ্রাপ্ত। বাড়িতে মেয়ে আর বাবা ছাড়া কেউই নেই। নাগেরবাজারের যুগিপাড়ার ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে তাঁদের বাড়ির পাশেই রয়েছে একটি ক্লাব। ওই ক্লাবে জড়ো হওয়া বেশ কয়েকজন যুবকের দাবি, শুক্রবার সন্ধেয় তাঁরা আচমকাই আর্তনাদ শুনতে পান। দৌড়ে যান বাড়িটিতে। কলিং বেল বাজান। বেরিয়ে আসেন বৃদ্ধ।

আরও পড়ুন : ইস্তফা নয়, সকালের ‘অভিমান’ ভুলে দুপুরেই প্রত্যাবর্তন সৌমিত্রর, কিছুই জানেন না দিলীপ

কোনও সমস্যা হয়েছে কিনা তা জানতে চান ওই যুবকেরা। তবে কোনও সমস্যা হয়নি বলেই জানান তিনি। ওই যুবকেরাও ফের ক্লাবে ফিরে আসেন। তবে কিছুক্ষণ পর তাঁরা স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পান বাড়ির মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। তিনি করোনা আক্রান্ত ছিলেন বলেও জানতে পারেন তাঁরা।

রাতভর মেয়ের দেহ নিয়ে ঘরেই ছিলেন বৃদ্ধ। সকালে বিষয়টি জানতে পারেন স্থানীয় কাউন্সিলর। তবে বৃদ্ধ কিছুতেই মেয়ের দেহ নিয়ে যেতে দিচ্ছিলেন না। এরপর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান স্বাস্থ্য দফতরের কর্মীরা। বৃদ্ধকে অনেক বুঝিয়ে সুঝিয়ে মেয়ের দেহ বের করা হয় বাড়ি থেকে। স্বাস্থ্য দফতরের কর্মীদের দাবি রাত প্রায় ৮টা ৯টা নাগাদ মৃত্যু হয়েছে বৃদ্ধের মেয়ের। যেহেতু মেয়ে করোনায় আক্রান্ত ছিলেন তাই বাড়ি থেকে বেরোতে নিষেধ করা হয়েছে ওই বৃদ্ধকে। শরীরে উপসর্গ দেখা দিলে দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্য দফতরে যোগাযোগের পরামর্শ। পাশাপাশি গোটা এলাকা জীবাণুমুক্ত করা হবে বলেও খবর।

সকালে কাউন্সিলর কেয়া দাস এই খবর পান। তবে ওই ব্যক্তি কিছুতেই মেয়েকে দাহ করতে তিনি চাননি। পরে স্বাস্থ্যদপ্তরের লোকজনও বাড়িতে পৌঁছয়। বৃদ্ধকে বুঝিয়ে ঘরের ভিতর ঢোকেন তাঁরা। স্বাস্থ্যকর্মীদের দাবি, ওই তরুণী কমপক্ষে রাত্রি আটটা-নটা নাগাদ মারা গিয়েছেন। বৃদ্ধকে বুঝিয়ে দেহ উদ্ধার করে দাহর ব্যবস্থা করা হয়। যেহেতু তরুণী করোনা আক্রান্ত ছিলেন তাই তাঁর বাবাকে বাড়িতে থেকে বেরতে বারণ করা হয়েছে। শরীরে ন্যূনতম কোনও উপসর্গ দেখা দিলেন স্বাস্থ্যদপ্তরে খবর দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন : দোতলা বাসে দেখুন কলকাতা, নবমী থেকে শুরু কলকাতা কানেক্ট…

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest