Nawsad Siddique gets bail after 7 hours

Nawsad Siddique: সাড়ে ৭ ঘণ্টা পর মুক্ত নওশাদ, পুলিশের বিরুদ্ধে মামলার হুঁশিয়ারি

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

সন্দেশখালি যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল আইএসএফ বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকির। যাওয়ার পথে কলকাতার সায়েন্স সিটির কাছে গ্রেফতার করা হল তাঁকে। মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৯টা নাগাদ সন্দেশখালির উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন নওশাদ। সায়েন্স সিটির কাছে পৌঁছতেই পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন তিনি।

জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার সন্দেশখালির উদ্দেশে রওনা দেন আইএসএফ বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকি। সায়েন্সসিটির কাছেই তাঁকে আটকায় পুলিশ। যার জেরে পুলিশের সঙ্গে বচসা শুরু হয় নওশাদের। সন্দেশখালি থেকে ৬২ কিলোমিটার দূরে তাঁকে কেন আটকানো হচ্ছে, তা জানতে চান নওশাদ সিদ্দিকি। পুলিশ আধিকারিকদের সঙ্গে রীতিমতো বিতণ্ডা শুরু হয় নওশাদের। এরপরেই পুলিশের তরফে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশের দাবি, ১৪৪ ধারা লঙ্ঘন করার অভিযোগে নওশাদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশের সঙ্গে সেই মুহূর্তে বচসায় জড়িয়ে পড়েন আইএসএফ বিধায়ক। নওশাদের পাল্টা দাবি, তিনি কোথাও জোর করে প্রবেশের চেষ্টা করেননি। এমনকি পুলিশের ব্যারিকেডও ভাঙেননি তিনি। তা হলে কী কারণে তাঁকে গ্রেফতার করা হল, সেই প্রশ্নই পুলিশকে করেছিলেন নওশাদ। পরে অবশ্য পুলিশের তরফে জানিয়ে দেওয়া প্রিভেন্টিভ মেজরে গ্রেফতার করা হয়েছে আইএসএফ বিধায়ককে।

সাড়ে ৭ ঘণ্টা পর মুক্তি পান ISF বিধায়ক। লালবাজারের বাইরে বের হতেই  নওশাদকে মালা দিয়ে বরণ করে নেন তাঁর অনুগামীরা। মুক্তির পর বিধায়কের দাবি, “সংবিধান স্বীকৃত মুক্ত চলাচলের অধিকার খর্ব করেছে পুলিশ। যে পুলিশ আধিকারিক আমাকে আটকেছে তাঁর বিরুদ্ধে আইনে লড়াইয়ে যাব। এভাবে স্বাধীন নাগরিক, দায়িত্বশীল বিরোধীদের আটকানো যায় না।”

একইসঙ্গে নওশাদের অভিযোগ, “উপরতলার নির্দেশে পুলিশ এই কাজ করেছে। উপরতলা মানে পুলিশমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অভিষেক বন্দ্য়োপাধ্যায়ের নির্দেশ না থাকলে পুলিশ এই কাজ করতে পারে না।”

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest