রাজভবনের খোলা বারান্দায় ৫১ BJP বিধায়ক নিয়ে বৈঠক রাজ্যপালের, বাকি ২৩ জন কোথায়? তুঙ্গে জল্পনা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

খাতায়-কলমে বিজেপির বিধায়ক সংখ্যা ৭৫। মুকুল রায় ইস্তফা দিলে সেই সংখ্যাটা কমে দাঁড়াবে ৭৪। কিন্তু সোমবার রাজভবনে হাজির থাকলেন গেরুয়া শিবিরের ৫১ জন বিধায়ক। তার জেরে স্বভাবতই প্রশ্ন উঠছে, বাকি ২৩ জন বিধায়ক কোথায় গেলেন? তাহলে কি তাঁরা তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে ঝুঁকে আছেন?

রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ জানাতে বিরোধী দলের প্রতিনিধিরা তাঁর সঙ্গে দেখা করতে আসছেন বলে সকালেই জানিয়েছিলেন রাজ্যপাল। সেই মতো বিকেল ৪টে নাগাদ বিধানসভা থেকে হেঁটে রাজভবনে এসে পৌঁছয় শুভেন্দু অধিকারী নেতৃত্বাধীন বিজেপি প্রতিনিধিদের একটি দল। রাজভবনের বারান্দায় রাজ্যপালের সঙ্গে বৈঠক হয় তাঁদের। বৈঠক শেষে তাঁদের সঙ্গে নিয়েই সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন ধনখড়। সেখানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র আক্রমণ করে বলেন, ‘‘বাংলায় গণতন্ত্র শ্বাস নিতে পারছে না। মানুষ রায় দিয়েছেন। কিন্তু প্রশাসন তার কাজ করছে না। বরং প্রশাসনিক কর্তারা আগুন নিয়ে খেলছেন। লাগাতার ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনা ঘটছে রাজ্যে। অথচ এক বারের জন্যও সেই জায়গাগুলিতে গেলেন না মুখ্যমন্ত্রী। লাগাতার হিংসা সত্ত্বেও নীরব রয়েছে প্রশাসন।’’

ভোট মেটার পর থেকেই রাজনৈতিক হিংসার অভিযোগ নিয়ে সরব রাজ্যপাল। তৃতীয় বার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথবাক্য পাঠ করানোর পর সংবাদমাধ্যমের সামনেই মমতাকে ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে পদক্ষেপ করতে বলেন। সোমবারও ফের সরাসরি মমতাকেই আক্রমণ করেন ধনখড়। তিনি বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী এ রাজ্যের স্বরাষ্ট্র দফতরেরও প্রধান। সংবিধানে হাত রেখে শপথ নিয়েছেন। সেই দায়িত্ব পালন করতে হবে ওঁকে। আইন মেনে কাজ করতে হবে।’’

সবমিলিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করেন ৫১ জন বিজেপি বিধায়ক। তার আগে বিধানসভায় বৈঠকেও ২৩ জন বিধায়ক (মুকুলকে বাদ দিয়ে) অনুপস্থিত ছিলেন। তার জেরে স্বভাবতই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। সূত্রের খবর, বিশেষত বিজেপি ছেড়ে মুকুল তৃণমূলে ফিরে যাওয়ার পরে গেরুয়া শিবিরের অন্দরে ভাঙনের চোরাস্রোত বইছে। কয়েকজন বিধায়ক ইতিমধ্যে বেসুরো গাইতে শুরু করেছেন। কয়েকজন মুকুল-ঘনিষ্ঠও তৃণমূলের দিকে পা বাড়িয়ে আছেন। মুকুলও নাকি চুপচাপ বসে নেই। তিনি আবার নাকি তৃণমূলে গিয়েই ফোন ঘোরাতে শুরু করে দিয়েছেন। ফোন যাচ্ছে বিজেপি বিধায়কদের কাছে। সেই পরিস্থিতিতে রাজ্যপালের সঙ্গে বৈঠকে ২৩ জন বিধায়ক অনুপস্থিত থাকায় প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, তাহলে কি বিজেপির ঘরে আরও ভাঙন ধরতে চলেছে? মুকুলকে পাশে বসিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে ‘বিজেপি থেকে আরও লোক আসবে’ বলেছিলেন, সেটার ফলই কি এখন মালুম হচ্ছে?

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest