State allocation of money for school building renovation, steps to open schools after Puja Holiday?

স্কুল ভবন সংস্কারে অর্থ বরাদ্দ রাজ্যের, পুজোর পর স্কুল খোলার পদক্ষেপ?

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

পুজোর পরই কি খুলছে রাজ্যের স্কুল? সেটি এখনও স্পষ্ট নয়। তবে স্কুল খোলার ব্যাপারে আরও একধাপ এগল বিকাশ ভবন। বিভিন্ন জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত স্কুল মেরামতির জন্য ১০৯ কোটি টাকার প্রশাসনিক অনুমোদন দিয়েছেন রাজ্যপাল।

এর আগে লকডাউন ও আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত স্কুলের সার্ভে করেছিল বিকাশ ভবন। জেলাশাসকদের চিঠি দেয় বিকাশ ভবন। করোনা আবহে দীর্ঘ দু’বছর বন্ধ ছিল স্কুল। স্কুল সারাতে কত টাকা লাগবে, সে ব্যাপারে জেলাশাসকদের খরচের তালিকা পাঠাতে বলল বিকাশ ভবন। ১৫ সেপ্টেম্বর ছিল সেটা জমা দেওয়ার শেষ তারিখ। এরই মধ্যে সেই তালিকা হাতে পেয়ে গিয়েছে বিকাশ ভবন। এরপর পরবর্তী পদক্ষেপ করা হল।

প্রায় বছর দেড়েকের উপর বন্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি। দশম ও দ্বাদশ শ্রেণি বাদে বাকিদের অনলাইনেই হচ্ছে পঠন-পাঠন। কমানো হয়েছে সিলেবাস। কিন্তু করোনা সংক্রমণ কমতেই স্কুল খোলার দাবি উঠছে। অগস্টেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন যে, পরিস্থিতি বিবেচনা করে পুজোর ছুটির পর স্কুল খোলার ছাড়পত্র দেবে রাজ্য সরকার। এবার পুজোর ছুটির আগেই স্কুল ভবনগুলি সংস্কারের জন্য অর্থ বরাদ্দ করল নবান্ন। প্রশানের এই পদক্ষেপ পুজোর ছুটির পর স্কুল খোলার উদ্যোগের প্রস্তুতি হিসাবেই মনে করা হচ্ছে।

বাংলায় করোনা সংক্রমণের হার আপাতত নিয়ন্ত্রণে। কিন্তু, এই হারই যে বজায় থাকবে তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। এরই মধ্যেই কেন্দ্রকে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্টের তরফে জানানো হয়েছে যে, অক্টোবরে ফের সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে। আর এর প্রবাব শিশুদের উপর বেশি পড়বে। ফলে পরিস্থিতি বিবেচনা করে স্কুল খুলতে চাইছে রাজ্য। তারই আগাম প্রস্তুতি হিসাবে স্কুল ভবন সংস্কারের জন্য অর্থ বরাদ্দ করা হল।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest