আগামিকাল বেলা ১১টা-৩টের মধ্যে বাড়িতে দেখা করবেন, সিবিআই-কে জবাব দিলেন রুজিরা

সিবিআই (CBI) আগেই জানিয়েছিল, আজ জবাব না পেলে দ্বিতীয়বার রুজিরাকে নোটিস পাঠাবে তারা।

সিবিআইয়ের নোটিসের জবাব দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায় নারুলা। কয়লাকাণ্ডে রবিবারই তাঁকে নোটিস পাঠায় সিবিআই। সোমবার সকাল ১০টার কিছু পরে তারই উত্তরে পাল্টা চিঠি দেন অভিষেক-পত্নী। লেখেন, কেন তাঁকে ডাকা হল তা নিয়ে তিনি অন্ধকারে রয়েছেন। তবে মঙ্গলবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর তিনটের মধ্যে সুবিধামত যে কোনও সময় তাঁর বাড়িতে যেতে পারেন তদন্তকারীরা। অন্যদিকে সোমবারই সিবিআইয়ের মুখোমুখি হওয়ার কথা অভিষেকের শ্যালিকা মেনকা গম্ভীরের।

কয়লাপাচার কাণ্ডে রবিবারই তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায় নারুলাকে নোটিস পাঠায় সিবিআই। কালীঘাটে অভিষেকের শান্তিনিকেতন বাড়িতে গিয়ে সে নোটিস দিয়ে আসেন তদন্তকারীরা। যদিও সে সময় বাড়িতে অভিষেক বা রুজিরা ছিলেন না। এদিন রুজিরার জবাবি চিঠির শুরুই হয়েছে সেই প্রসঙ্গ উল্লেখ করে।

নিজাম প্যালেসের ঠিকানায় লেখা চিঠির শুরুতে রুজিরা উল্লেখ করেছেন, “২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ তারিখে আমি আপনাদের একটি চিঠি পেয়েছি। দুপুর ২টোয় নাগাদ চিঠিটি আসে। যদিও সে সময় আমি বাড়িতে ছিলাম না। কেন আমাকে এই বিষয়ের তদন্তে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চাওয়া হয়েছে সেটা আমার কাছে স্পষ্ট নয়। তবে আপনারা ২৩ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১টা থেকে বেলা ৩টের মধ্যে যে কোনও সময়ে আসতে পারেন। দয়া করে আমাকে আপনাদের আসার সময়টা জানাবেন।”

তৃণমূলের অঘোষিত দু’নম্বর অভিষেক রবিবারই টুইট করে জানিয়েছিলেন, তাঁকে ভয় দেখিয়ে কিছু করা যাবে না। মাথা নতও করানো যাবে না। তবে তাঁরা তদন্তকারী সংস্থার সঙ্গে সবরকম সহায়তা করতে প্রস্তুত। আইনের অনুশাসনের উপর তাঁদের সম্পূর্ণ আস্থা আছে। রুজিরার জবাবি চিঠিতে ওই ঘটনা নিঃসন্দেহে আরও কৌতূহলজনক মোড় নিল। এখন গোটা রাজ্য এবং রাজনৈতিক মহল তাকিয়ে থাকবে মঙ্গলবার দুপুরের দিকে।

উল্লেখ্য, কয়লা-কাণ্ড নিয়ে কথা বলতে চেয়ে অভিষেকের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায় নারুলাকে রবিবার নোটিস দিয়েছিল সিবিআই। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার একটি দল হরিশ মুখার্জি স্ট্রিটে অভিষেকের বাড়ি ‘শান্তিনিকেতন’-এ গিয়েছিল রুজিরাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায়। সেখানেই তারা ওই নোটিস দিয়ে আসে। নোটিস দেওয়া হয়েছিল অভিষেকের শ্যালিকাকেও।

আরও পড়ুন: জেল-টেলের ভয় দেখাবেন না, ওসব পেরিয়ে এসেছি স্বভাবসুলভ নির্ভীকতা মমতার

ঘটনাচক্রে, সিবিআই ওই নোটিস দেওয়ার ৪৮ ঘণ্টা আগেই অভিষেকের করা একটি মামলায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছে বিধাননগরের বিশেষ আদালত। যেখানে তাঁকে সোমবার ওই আদালতে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে। বিজেপি তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন দুর্নীতিতে জড়িত থাকার যে অভিযোগ তুলছে, তার প্রমাণও দাবি করেছিলেন অভিষেক। গত শুক্রবার অমিতকে ওই প্রমাণের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেছিলেন, ‘‘প্রমাণ আমি দেব না। দেবে তদন্তকারী সংস্থা। তখন যেন দিদি সেটাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং প্রতিহিংসাপরায়ণতা না বলেন।

ঘটনাচক্রে, তার ৪৮ ঘন্টার মধ্যেই রুজিরার কাছে সিবিআইয়ের নোটিস পৌঁছেছে। প্রত্যাশিত ভাবেই এর মধ্যে ‘রাজনীতি‌’ দেখতে পাচ্ছে তৃণমূল। কারও নাম না করলেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রবিবারই বলেছেন, ‘‘দিল্লির কোনও কোনও নেতা বলছে বাংলার মেরুদণ্ড ভেঙে দিতে। আমরা ধমকানি-চমকানিতে ভয় পাই না। ভয় পাওয়ার কারণও নেই।’’

সিবিআইয়ের দাবি, কয়লা-কাণ্ডে অভিষেকের স্ত্রী-র ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ‘সন্দেহজনক’ আর্থিক লেনদেন করা হয়েছে। তদন্ত করতে গিয়ে ওই লেনদেনের হদিস পেয়েছেন তদন্তকারীরা। সেই জন্যই রুজিরার বয়ান সংগ্রহ করতে চান তাঁরা। এবং তা করতে চান অভিষেকের বাড়িতেই। নিজাম প্যালেসে সিবিআইয়ের দফতরে নয়। এমনকি, রুজিরাকে ‘তলব’ও করা হয়নি বলে জানিয়েছে সিবিআই। একটি মহলের দাবি, রুজিরাকে ‘সাক্ষী’ হিসাবেই জিজ্ঞাসাবাদ করতে চান তদন্তকারীরা। ফৌজদারি আইনের ১৬০ ধারায় ওই নোটিস দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সিবিআই ।

আরও পড়ুন: ভোট আসতেই তৎপর কেন্দ্রের CBI, Rujira-র অ্যাকাউন্ট থেকে নাকি টাকা যেত ৪ দেশে!