Wife hires beautiful mistress to keep her husband happy

Thailand: স্বামীকে খুশি করতে ‘রক্ষিতা’ ভাড়া যুবতীর, গ্যারান্টি দিলেন আর ঝগড়া হবে না

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

ভালোবাসার মানুষকে সুখী দেখতে মানুষ কী না করেন। প্রয়োজনে তাঁর সুখের দায়িত্ব অন্য কারও হাতে তুলে দেওয়া যায়। এমনটা করলেন থাইল্যান্ডের এক পাথিমা চমনান। স্বামীকে খুশি রাখতে একজন ‘সুন্দরী এবং শিক্ষিত’ উপপত্নী নিয়োগ করেছেন তিনি। একজন-দু’জন নন। তিন-তিন জন!

৪৪ বছর বয়সী পত্থিমা চমনন ব্যাঙ্ককের বাসিন্দা। তিনি জানান, দীর্ঘদিন ধরে স্বামী ও তাঁর বিছানা আলাদা। নানা কারণে তাঁদের ঝামেলা হত। তার পর তিনি স্বামীর জন্য এক জন শিক্ষিতা ও সুন্দরী সেবিকা চেয়ে বিজ্ঞাপন দেন। বেতন ৩৩,৮০০ টাকা। যোগ্যতা— ন্যূনতম কলেজ পাশের শংসাপত্র থাকতে হবে। একটি ভিডিয়োয় তিনি বলেন, ‘‘স্বামীর জন্য তিন জন সেবিকা রাখতে চাই। তাঁরা মাসে ৩৩,৮০০ টাকা করে বেতন পাবেন। খাবার-দাবারের বন্দোবস্ত আছে।’’ তবে দু’জন সেবিকা থাকবেন চমননকে অফিসের কাজে সাহায্য করতে এবং অন্য জন কেবল তাঁর স্বামীর দেখভাল করবেন। ভিডিয়োবার্তার শেষভাগে তাঁর সংযোজন, ‘‘আমার স্বামী প্রচুর পরিশ্রম করেছেন। একা একা কাজ করেছেন। এখন আমি তাকে সুখী দেখতে চাই।’’

আরও পড়ুন: Dating: মেয়েরা ডেটিংয়ে ডাকলে প্রথমদিনই যৌনতার সম্ভাবনা বেশি! ইঙ্গিত সমীক্ষায়

তিনি আশ্বাস দিয়েছেন, ‘আমি গ্যারান্টি দিচ্ছি যে আপনার এবং আমার মধ্যে কোনওদিনও কোনও ঝগড়া হবে না।’ তিনি বলেন, ‘প্রার্থীর সন্তান থাকলে চলবে না। কারণ সেটি একটি বোঝা হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাঁদের ফিটফাট থাকতে হবে এবং গুছিয়ে কথা বলতে জানতে হবে।’ এরপর মহিলা যোগ করেছেন যে, প্রার্থীদের পক্ষে ‘আমার স্বামীকে খুশি করতে’ পারাটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেছিলেন, ‘ওনার উপপত্নীদের ওঁকে সঙ্গ দিতে এবং বিনোদন দিতে পারদর্শী হতে হবে। তাই অবশ্যই একটি ভাল ব্যক্তিত্ব থাকতে হবে এবং মজার মানুষ হতে হবে।’

স্বামীর জন্য কেন এমন বিজ্ঞাপন? মহিলা জানাচ্ছেন, তিনি দীর্ঘ দিন ধরে মানসিক অবসাদে ভুগছেন। নিজের অসুখের জন্য স্বামীকে সময় দিতে পারেন না। স্বামীকে ভাল রাখতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এবং তিনি বিশ্বাস করেন এতে তাঁদের দাম্পত্য কলহ কমবে। অন্য দিকে, স্ত্রীর এমন বিজ্ঞাপন নেটমাধ্যমে প্রচার হতে দেখে অবাক হয়েছেন স্বামী। তাঁর কথায়, ‘‘পরে স্ত্রীর কাছে জানতে পারি ও এমন এক জনকে খুঁজছে যিনি আমার খেয়াল রাখবেন। পরিবারের সদস্যের মতো থাকবেন এবং আমাদের সংস্থায় কাজও করবেন।’’ তাঁর সংযুক্তি, ‘‘কখনও নিজের জন্য ‘সেবিকা’ রাখার কথা ভাবিনি। এখন স্ত্রী যখন রাখতে চাইছে, না-ও করিনি।’’

জানা গিয়েছে যে, ওই দম্পতি ইতিমধ্যেই তাঁদের জীবনে সেই তৃতীয় মহিলাকে পেয়ে গিয়েছেন। ডেইলি স্টার জানিয়েছে, পাথিমা ৩৩ বছর বয়সী একজন ‘সুন্দরী’কে তাঁর স্বামীর রক্ষিতা হিসেবে নিয়োগ করেছেন। মহিলাটি আবার তাঁর ‘ঘনিষ্ঠ বন্ধু’ বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: Tips For Men: আদা, পেঁয়াজের রস খেয়েই পুরুষরা বাড়িয়ে ফেলুন বিছানার স্ট্যামিনা!

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest