Lok Sabha 2019 Live: ভোটের শুরুতেই রণক্ষেত্র কেশপুর, ভারতী ঘোষকে লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টি, চলল গুলি

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

#কেশপুর: ষষ্ঠ দফার ভোটে সাতসকালেই অশান্তি ছড়াল বাংলায়। পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুরে বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষকে হেনস্থার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। আধা সেনার সামনেই তৃণমূলব-বিজেপি ধস্তাধস্তি বেঁধে যায়। ভারতী ঘোষকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ। ভারতীর পায়ে আঘাত লেগেছে বলে খবর। যদিও তৃণমূলের তরফে পাল্টা দাবি, বিজেপি প্রার্থীই অশান্তি ছড়াচ্ছে। এদিকে, কেশপুরের দোগাছিয়ায় ভারতী ঘোষের গাড়িতে ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। ইটের ঘায়ে মাথা ফাটল ভারতীর নিরাপত্তারক্ষীর। ভারতীকে লক্ষ্য করে ইট ছোড়া হয় বলে অভিযোগ।

জানা গিয়েছে, একটি বুথে ছাপ্পাভোট চলছে, এমনই অভিযোগ পেয়ে গিয়েছিলেন সেখানে গিয়েছিলেন ভারতী। তাঁকে দেখামাত্রই গ্রামবাসীরা তেড়ে আসেন। আচমকা তাঁর গাড়ি ঘিরে ধরে ইট, পাথর ছোড়া হয়। ভাঙচুর করা হয় বিজেপি প্রার্থীর গাড়ি। ভারতীর নিরাপত্তারক্ষীরা তাঁকে কোনও রকমে সেখান থেকে মুক্ত করে সরিয়ে নিয়ে যায়। গ্রামবাসীদের ছত্রভঙ্গ করতে কেন্দ্রীয় বাহিনী লাঠিচার্জ করে। গ্রামবাসীদের ইটের ঘায়ে ভারতীর এক নিরাপত্তারক্ষীর মাথা ফেটে যায়। হামলা চালানো হয় সংবাদমাধ্যমের কয়েকটি গাড়িতেও।৪ রাউন্ড গুলি চালানো হয় বলে অভিযোগ। বখতিয়ার খান নামে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন ১জন। ভারতী ঘোষকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখালে গুলি চালায় নিরাপত্তারক্ষী।

এছাড়া, কেশপুরের একটি বুথে ভারতীকে ঢুকতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। দলের পোলিং এজেন্টকে বসতে দেওয়া হচ্ছে না, বুথে এক সঙ্গে অনেক লোক ঢুকে পড়ছেন— এমনই সব অভিযোগ পেয়ে শিবশক্তি হাইস্কুলের ২০৬, ২০৭ নম্বর বুথে গিয়েছিলেন ভারতী। সেই সময়ই তাঁকে মহিলাদের বাধার মুখে পড়তে হয়। অভিযোগ, তাঁকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়া এবং শারীরিক নিগ্রহও করা হয়। ৪০ মিনিট ধরে চেষ্টা করেও বুথে বিজেপির এজেন্টকে বসাতে পারেননি ভারতী। পরে ফিরে যান সেখান থেকে।

অন্যদিকে, নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ উঠল ঘাটালের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে। ভোট লুঠ হচ্ছে, ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের জানলা খোলা রয়েছে— এমনই অভিযোগ পেয়ে কেশপুরের পিকুড়দা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৩৯ নম্বর বুথে গিয়েছিলেন ভারতী। অভিযোগ, বুথের ভিতরে গিয়ে তিনি ভিডিয়োগ্রাফি করেন। নির্বাচন কমিশনের কাছে ভারতীর বিরুদ্ধে বিধিভঙ্গের অভিযোগ জমা পড়ে। ভারতী ঘোষ ও প্রিসাইডিং অফিসারের বিরুদ্ধে জেলাশাসককে কড়া পদক্ষেপের নির্দেশ কমিশনের।

সকাল ৯টা পর্যন্ত তমলুকে ভোট পড়েছে ২০.৭৩ শতাংশ, কাঁথি ১২.০৫ শতাংশ, ঘাটাল ১৮.৫০ শতাংশ, ঝাড়গ্রাম ১৮.৪৯ শতাংশ, মেদিনীপুর ১৬.০৫ শতাংশ, পুরুলিয়া ১৬.৯২ শতাংশ, বাঁকুড়া ১১.৬২ শতাংশ, বিষ্ণুপুর ১৮.৮৯ শতাংশ। গড়ে ভোট পড়েছে ১৬.৬৬ শতাংশ।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest