বিশ্বের নবম এবং এশিয়ার এক নম্বর ধনী মুকেশ আম্বানি, তাঁর বাড়ি-গাড়ির দাম শুনলে পিলে চমকে যাবে

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

ওয়েব ডেস্ক: করোনা অতিমারীর মধ্যেই সম্পদের পরিমাণ এক ধাক্কায় অনেকটা বাড়িয়ে মুকেশ আম্বানি। তারই ফল স্বরূপ বিশ্বের সেরা ১০ ধনীর তালিকায় (world’s top 10 richest people) ঢুকে পড়লেন তিনি। এই তালিকায় বর্তমানে নয় নম্বর স্থান অধিকার করে আছেন মুকেশ আম্বানি।

 ব্লুমবার্গের তথ্য অনুযায়ী, মুকেশের মোট সম্পত্তির পরিমাণ এখন ৬৪.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের। ভারতীয় মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ৫০০ কোটি টাকা।ব্লুমবার্গের হিসেব অনুযায়ী, মুকেশ বিশ্বের ধনীতম ব্যক্তিদের তালিকায় নবম।

আরও পড়ুন : গালওয়ানে মৃত্যু হয়েছে চিনা সেনা কমান্ডারের ঢোঁক গিলে কবুল করল বেজিং

করোনা অতিমারী আর তা প্রতিরোধ করতে লকডাউনের জেরে গোটা বিশ্বের অর্থনীতি ধাক্কা খেয়েছিল। তবে সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, টেলিকম সংস্থা জিও অনেক সমৃদ্ধ হয়েছে। লকডাউনে মানুষের ইন্টারনেট ব্যবহারের পরিমাণ ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। যে বাজারের সিংহভাগই দখল করে রেখেছে জিও। তার প্রতিফলন পড়েছে মুকেশের সম্পত্তিতেও।

এর আগেও বিলিয়নিয়ার তালিকা তৈরির জন্য সবচেয়ে সুখ্যাত প্রতিষ্ঠান ফোর্বসের বিবেচনায় মুকেশ টানা ১২ বার ভারতের শীর্ষ ধনী হয়েছেন।আর এবারও সেরা স্থানটি ধরে রেখেছেন অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস। তার সম্পদের পরিমাণ ১৬ হাজার ৪০০ কোটি ডলার। এর পরের অবস্থানে আছেন মাইক্রোসফটের বিল গেটস। তার সম্পদের পরিমাণ ১০ হাজার ৯৯০ কোটি ডলার।

তৃতীয় স্থানে রয়েছেন ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী জাকারবার্গ। চতুর্থ স্থানে রয়েছেন ফ্রান্সের লিলিয়ানে বেটেনকোর্ট ও গ্রুপ আরনল্টের বার্নার্ড আরনল্ট। এরপর রয়েছেন বার্কশায়ার হ্যাথাওয়ের ওয়ারেন বাফেট।

মুকেশ আম্বানি যে বাড়িতে থাকেন তা বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দামি বাড়ি। যেটির নাম অ্যান্টিলিয়া। মুম্বই শহরের আলটামাউন্ট রোডে অবস্থিত এই বাড়ির দাম ২০০ কোটি ডলার, যা ভারতের ১৪ হাজার কোটি রুপির সমান। এই বাড়ির চেয়ে বেশি ব্যয়বহুল আর একটি বাড়িই আছে বিশ্বে, সেটি হলো ব্রিটিশ রাজপরিবারের প্রধান প্রশাসনিক দপ্তর বাকিংহাম প্যালেস।

এছাড়া মুকেশ আম্বানি ব্যবহার করেন বিশ্বের সবচেয়ে দামি বেশ কয়েকটি গাড়ি। এসব গাড়ির মধ্যে আছে দুটি বেন্টলি বেন্টাগা মার্সিডিজ মেব্যাচ, অ্যাস্টমার্টিন রেপিড, রোলসরয়েস ফ্যান্টম, ল্যান্ডরোভার ডিসকভারি, ল্যান্ডরোভার রেঞ্জ রোভার, এনডেভার, বিএমডব্লিউ ইত্যাদি। এর মধ্যে বেন্টলি বেন্টাগার দাম ৭ কোটি ৬০ লাখ রুপি।

আরও পড়ুন : সুশান্তের নাম না-করে ভালোবাসার পোস্ট রতন টাটার, মন ভিজিয়ে দিল নেটবাসীদের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest