বক্তৃতার মাঝেই ‘লালু জিন্দাবাদ’ স্লোগান, রেগে গেলেন নীতীশ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

সামনেই বিহারের বিধানসভা নির্বাচন। সেই উপলক্ষে বুধবার সরণ জেলার পারসা বিধানসভা ক্ষেত্রের ডেরনিতে ভোট প্রচারে গিয়েছিলেন নীতীশ। বক্তৃতা দিচ্ছিলেন নীতীশ কুমার মঞ্চে। হঠাৎই সমাবেশের মধ্যে থেকে স্লোগান ওঠে ‘লালু জিন্দাবাদ’।

এমন স্লোগান শুনেই মেজাজ হারালেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। বক্তৃতা থামিয়ে সমবেত শ্রোতাদের রীতিমতো ধমকাতে শোনা গেল তাঁকে।মঞ্চে নীতীশ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রীয় জনতা দলের(আরজেডি) প্রাক্তন নেতা চন্দ্রিকা রাই।

আরও পড়ুন : Durga Puja 2020: আর্জি খারিজ হাইকোর্টে, মণ্ডপে দর্শনার্থীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা বহাল

মাঝপথেই বক্তৃতা থামিয়ে নীতীশ জিজ্ঞাসা করেন, ‘ভাই হাত ওঠান একটু, মাঝে কী যেন বলছিলেন আপনারা?’ সঙ্গে সঙ্গে সমাবেশ থেকে একটা কোলাহল ওঠে। এ বার ধমকের সুরে নীতীশ বলেন, “এখানে এ ধরনের ভাষা ব্যবহার করবেন না। যদি ভোট না দিতে চান, দেবেন না। কিন্তু এ ভাবে হল্লা করা কি ঠিক?” ফের সমস্বরে সমাবেশ থেকে আওয়াজ ওঠে— ‘না’।

এর পরই নীতীশ বলেন, “এ ভাবে হল্লা করলে হবে না। যাঁর ভোটের জন্য এখানে এসেছেন, তাঁর ভোটও নষ্ট করবেন আপানারা। এ রকম শিশুসুলভ আচরণ করবেন না।” চন্দ্রিকা রাইয়ের সমর্থনে ভোট প্রচারে এ দিন পারসাতে গিয়েছিলেন নীতীশ। কিন্তু বক্তৃতার মাঝপথে এমন স্লোগান শুনে বেজায় অস্বস্তিতে পড়েন তিনি।

জনমত সমীক্ষা বলছে নীতীশের হাল ভালো নয়। বিজেপির অবস্থা যে ভালো তাও নয়। তবে সরকারটা হয়ত টিকে যেতে পারে। নীতীশের বিরুদ্ধে একটা সরকার বিরোধিতা তৈরী হয়েছে।এই লকডাউনে নীতিশও তেমন কিছু করেননি , বিজেপিও করেনি। কেবল নরেন্দ্র মোদির ভাষণ শোনানো হয়েছে। যাতে  খেটে খাওয়া মানুষ একেবারেই খুশি নয়।

এখন ভোট প্রচারে ফের মন্দিরের গপ্পো শোনাতে শুরু করেছে বিজেপি। তাতে যে বিহারবাসী আগ্রহ দেখাচ্ছে তেমন মনে করছেন না রাজনীতির কারবারিরা। আসলে বিজেপি মন্দির ইস্যু নিংড়ে তেতো করে ফেলেছে বলে মনে করেছেন অনেকে। মানুষ কাজ চাইছে। কুর্সি আঁকড়ে থাকা নীতীশের কৌশলকে লোকে ভালোভাবে নিচ্ছে না। তারই আওয়াজ শোনা গেল ভরা জনসভায়। কিছু লোক মনের করছেন আর যাই হোক লালু বিশ্বাসঘাতক নয়। তিনি যা বলেন তাই করেন। রাজনৈতিক এই বিশ্বাসযোগ্যতা লালুপ্রসাদ যাদবের এখন আছে। হয়তো সেটা ডিভিডেন্ট দিতে পারে আরজেডিকে।

আরও পড়ুন : যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে চান? জেনে নিন কি কি খাবার খাওয়া উচিত রোজ…

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest