নীতীশের দুর্নীতি নিয়ে মোদীর বক্তৃতা বিহার ভোটে প্রচারের অন্যতম হাতিয়ার তেজস্বীর

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

অনেক সময় নিজের কথায় যে কাল হয়ে দাঁড়াতে পারে তা বোধহয় কল্পনাও করেননি মোদী। একেই বোধহয় বলে ‘সেম সাইড’ গেম। বিহারে ভোট প্রচারে দুর্নীতি বিতর্কে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারকে খোঁচা দিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বক্তৃতার ভিডিয়োকে হাতিয়ার করলেন আরজেডি নেতা তেজস্বী যাদব।

আরও পড়ুন : ‘যৌন হেনস্থার জন্য কর্মরতা মহিলারাই’, মুকেশ খান্নার মন্তব্যে বিতর্কের ঝড়

তেজস্বীর শেয়ার করা মোদীর সেই ভিডিয়ো ইতিমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। প্রধানমন্ত্রীকে সেখানে বলতে শোনা যাচ্ছে, ‘‘সম্মাননীয় নীতীশজির জমানায় বিহারে ৩০ হাজার কোটি টাকার ৬০টি বড় দুর্নীতির ঘটনা ঘটেছে।’’

২০১৫ সালে বিহার বিধানসভা ভোটে বিজেপির প্রচারসভার ভাষণে নীতীশকে দুর্নীতিগ্রস্ত বলে মন্তব্য করেছিলেন মোদী । ঘটনাচক্রে, নীতীশের জেডি (ইউ) তখন ছিল বিজেপি-বিরোধী শিবিরে। আরজেডি এবং কংগ্রেসের সঙ্গে ‘মহাগঠবন্ধন’-এ। সে সময় বিজেপির প্রতিটি সভাতেই মোদী নিয়ম করে নিশানা করতেন নীতীশকে।

২০১৫-র বিধানসভা ভোটে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটকে পর্যুদস্ত করে ক্ষমতায় ফেরেন।  সেই সরকারের মন্ত্রী হন তেজস্বী এবং তাঁর দাদা তেজপ্রতাপ।  কিন্তু ২০১৭ সালে নীতীশ ‘মহাগঠবন্ধন’ ছেড়ে ফের এনডিএ জোটে শামিল হন। মোদী যে সময় নীতীশের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছিলেন, আরজেডি তখন বিহার মন্ত্রিসভায় ছিল না।

২৪৩ আসন বিশিষ্ট বিহার বিধানসভার প্রথম দফায় ৭১টি আসনে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে ২৮ অক্টোবর। নভেম্বরের গোড়াতেই আরও দুই দফায় নির্বাচন হবে। চিরাগ পাসোয়ানের এলজেপি এনডিএ জোট ছেড়ে আলাদা লড়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় এ বার নীতীশ বনাম তেজস্বী শিবিরের কড়া টক্কর হতে চলেছে বলে কয়েকটি জনমত সমীক্ষার পূর্বাভাস।

আরও পড়ুন : পিরিয়ডসের ব্যথায় প্রতিমাসে ভোগেন? জেনে নিন কষ্ট ঘরোয়া সমাধান…

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest