রাহুলের উত্তরসূরি বাছতে ১০ আগস্ট বৈঠক কংগ্রেসের, জল্পনায় প্রিয়াঙ্কার নামও

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

#নয়াদিল্লি: অবশেষে সরকারিভাবে কংগ্রেসে রাহুল গান্ধী জমানার অবসান ঘটতে চলেছে! হয়তো আগামী সপ্তাহেই নতুন কংগ্রেস সভাপতির নাম ঘোষণা হতে চলেছে। আসলে আগামী ১০ আগস্ট কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক ডাকা হয়েছে দিল্লিতে। এই বৈঠকের মূল এজেন্ডাই হল পরবর্তী সভাপতি নির্বাচন করা। কংগ্রেসের শীর্ষ নেতাদের পাশাপাশি এই বৈঠকে উপস্থিত থাকতে পারেন রাহুল-সোনিয়াও। মনে করা হচ্ছে, ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকেই দলের পরবর্তী নেতা নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়ে যাবে।

লোকসভা ভোটের ফল ঘোষণার পরপরই দলের ভরাডুবির দায়িত্ব নিয়ে ইস্তফা দিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী। কিন্তু দলের শীর্ষ নেতৃত্ব সে সময় তাঁর পদত্যাগপত্র গ্রহণ না করে তাঁকেই দায়িত্বে থাকার আর্জি জানায়। তারও মাসখানেক পরে প্রকাশ্যে আনেন নিজের ইস্তফাপত্র। শুধু তিনি নিজে নয়, গান্ধী পরিবারের কাউকেও সভাপতি পদের জন্য না ভাবার কথা বলেন রাহুল। পাশাপাশি বেশ কয়েক বার বলেছেন, তাড়াতাড়ি সভাপতি নির্বাচন করতে। কিন্তু প্রায় তিন মাস অতিবাহিত হওয়ার পরেও এখনও সভাপতি নির্বাচনের প্রক্রিয়াই কার্যত শুরু করতে পারেনি কংগ্রেস।

এই পরিস্থিতিতে দলের রাশ কার্যত আলগা, দিশা নেই। কোন পথে আন্দোলন, কী ভাবে বিজেপির মোকাবিলা, সংসদের স্ট্র্যাটেজি কী— সে সব বিষয়ে সাংসদ থেকে নেতারা কার্যত বিভ্রান্ত। একের পর এক নেতা পদ ছেড়েছেন। দলই ছেডে় দিয়েছেন অমেঠীর দীর্ঘদিনের বর্ষীয়ান নেতা ও রাজ্যসভার সাংসদ সঞ্জয় সিং। তিনি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন বলেও খবর। কর্নাটকে একের পর এক বিধায়ক দল ছাড়া এবং তার জেরে ডেজিএস-কংগ্রেস জোটের সরকার পড়ে গেলেও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের তেমন কাউকে সক্রিয় হতে দেখা যায়নি। আবার শশী তারুর, করণ সিং -এর মতো নেতাদের গলায় হতাশার সুর।

কিন্তু এত কিছুর পরও কার্যত শীর্ষ নেতৃত্বের ঘুম ভাঙেনি। তবে শেষ পর্যন্ত নড়েচড়ে বসল হাইকম্যান্ড। কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) তথা বর্ষীয়ান নেতা কেসি বেণুগোপাল রবিবার টুইট করে জানালেন, ‘আগামী ১০ অগস্ট শনিবার বেলা ১১টায় কংগ্রেস সদর দফতরে সিডব্লিউসির বৈঠক হবে।’ গত সপ্তাহেই দলের তরফে জানানো হয়েছিল, সংসদের বাদল অধিবেশন শেষ হলেই সভাপতি নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু হবে। বাদল অধিবেশন শেষ হচ্ছে ৭ অগস্ট, বুধবার। রাহুল গান্ধীর ইস্তফার প্রায় আড়াই মাস পর এই প্রথম বৈঠকে বসছে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি।

সূত্রের খবর, এখনও পর্যন্ত যা ঠিক হয়েছে তাতে কংগ্রেসের পরবর্তী সভাপতি গান্ধী পরিবারের বাইরে থেকেই নির্বাচন করা হবে। দলের বেশ কিছু নেতা প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে সভাপতি পদে চাইলেও, কংগ্রেসের উত্তরপ্রদেশের দায়িত্বে থাকা সাধারণ সম্পাদক যে এখনই দায়িত্ব নিতে রাজি নন, তা তিনিও সাফ জানিয়ে দিয়েছেন। ফলে ১০ আগস্টের বৈঠকে শিঁকে ছিঁড়তে পারে অন্যদের। আলোচনায় আছে বেশ কয়েকটি নাম। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য, কে সি বেণুগোপাল, সুশীলকুমার শিণ্ডে, জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া, শচীন পাইলট এবং অশোক গেহলট।

কংগ্রেস দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, দলে কোনও সঙ্কট তৈরি হলে সবচেয়ে বর্ষীয়ান নেতা দলের হাল ধরবেন এবং তিনিই দলের দৈনন্দিন কাজকর্ম পরিচালনা করবেন। পরবর্তী সভাপতি নির্বাচিত না হওয়া পর্যন্ত তিনিই অন্তর্বর্তী সভাপতির নাম ঘোষণা করবেন। ফলে ১০ তারিখের বৈঠকে সেই অন্তর্বর্তী সভাপতির নাম ঘোষণা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেই মত রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের।সেক্ষেত্রে মোতিলাল ভোরার মতো পুরনো বিশ্বস্ত লোককে এক বছরের জন্য অন্তর্বর্তী দায়িত্বও দেওয়া হতে পারে।

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest